৩৫ লাখ টাকায় ‘আলাদিনের চেরাগ’ কিনে প্রতারিত হলেন চিকিৎসক!

ভারতের উত্তর প্রদেশে ভাগ্য বদলের নেশায় মত্ত এক চিকিৎসক আলাদিনের চেরাগ কিনতে গিয়ে প্রতারিত হয়েছেন।

দুই প্রতারক তাকে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন এই চেরাগ কিনলেই বিপুল সম্পত্তি ও সুখের দিশা পাবেন তিনি। দেখতে আরব রজনীর সেই চেরাগের মতোই একটি নকল চেরাগ তৈরি করে তাতে আলো জ্বালানোর ব্যবস্থাও করে প্রতারক চক্র।

পরে ওই দুই প্রতারক এই চেরাগের জন্য চিকিৎসকের কাছে ২ লাখের বেশি ডলার চায়। শেষ পর্যন্ত তা ৪১ হাজার ৫০০ ডলারে (৩৫ লাখ ২১ হাজার ৭৫৪ টাকা) কিনে নেন তিনি। এ প্রতারণার সঙ্গে জড়িত দু’জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এছাড়া আরও একজনকে খুঁজছে পুলিশ।

চলতি সপ্তাহের শুরুর দিকে উত্তরপ্রদেশের মিরাটের স্থানীয় থানায় প্রতারণার মামলা দায়ের করেন ওই চিকিৎসক। মামলার অভিযোগে তিনি বলেন, তিনি এক মাসের বেশি সময় ধরে একজন নারীর চিকিৎসা করছিলেন। এ সময় দুই ব্যক্তির সঙ্গে তার স্বাক্ষাৎ হয়। ওই নারী সম্ভবত এই দু’জনের মা।

তিনি বলেন, এর এক পর্যায়ে তারা আমাকে একজন স্বঘোষিত ধ’র্মগুরুর গল্প বলেন। তাদের বাড়িতেও গিয়েছিল সেই গুরু। তারা ধীরে ধীরে আমাকে নানা বিষয় বোঝাতে থাকে এবং এক পর্যায়ে সেই গুরুর সঙ্গে দেখা করার আমন্ত্রণ জানায়। পরে ওই গুরুর সঙ্গে দেখা করেন তিনি।

একদিন সেই গুরুর সঙ্গে দেখা করতে যান চিকিৎসক। পরে সেখানে আলাদিনের চেরাগের জিনের বাদশাহর বেশে একজনকে হাজির করেন স্বঘোষিত ধ’র্মগুরু। চিকিৎসক অভিযোগপত্রে বলেছেন, আমি বুঝতে পারি অভিযুক্ত দু’জনের একজন প্রতীকী চরিত্র আলাদিনের বেশে আমার সামনে এসেছিল। চেরাগের সত্যতা বুঝানোর জন্য অভিযুক্তদের একজন জিনের ভান করে।

পরে অভিযুক্তরা চিকিৎসককে সম্পদ, সুস্বাস্থ্য এবং সৌভাগ্য বয়ে আনবে উল্লেখ করে আলাদিনের সেই চেরাগ ভারতীয় ১ কোটি ৫০ লাখ রূপিতে বিক্রি করে দেয়া হবে বলে জানান। কিন্তু সেটি তাৎক্ষণিকভাবে মাত্র ৩ লাখ ১০ হাজার রূপিতে কিনে নেন ওই চিকিৎসক।

মিরাটের জ্যেষ্ঠ পুলিশ কর্মকর্তা অমিত রাই ভারতীয় একটি টেলিভিশনে বলেন, অভিযুক্তরা একই উপায়ে অন্যান্য পরিবারগুলোর সঙ্গেও প্রতারণা করেছে। প্রতারক চক্রের দুই সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ চক্রের অন্য এক নারী সদস্যকে খুঁজছে পুলিশ।

x