প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকের সব পাঠ্যবই বদলে যাচ্ছে

২০২২ থেকে ২০২৬ সালের মধ্যে বদলে যাচ্ছে প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকের সব পাঠ্যবই। ২০২৩ শিক্ষাবর্ষে নবম এবং ২০২৪ শিক্ষাবর্ষে দশম শ্রেণির পরিমার্জিত পাঠ্যবই হাতে পাবে শিক্ষার্থীরা।

এতে আগের মতো মানবিক, বিজ্ঞান ও বাণিজ্য বিভাগ থাকবে না। মাধ্যমিকে সব শিক্ষার্থীকে সমান দক্ষতা অর্জনের জন্য এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। তবে একাদশ থেকে বিভাগ বিভাজন শুরু হবে।

এনসিটিবির সদস্য অধ্যাপক ড. এ কে এম রেজাউল হাসান বলেন, ‘করোনার কারণে পরিমার্জন পিছিয়ে যাওয়ায় ২০২৩ সালে অষ্টম এবং ২০২৪ সালে দশম শ্রেণির পরিমার্জিত বই দেওয়া হবে। এসব বইয়ে বিভাগ বিভাজন থাকবে না।’

জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তুক বোর্ড (এনসিটিবি) সূত্রে জানা গেছে, কারিকুলাম পিছিয়ে যাওয়ায় সব কার্যক্রমই এক বছর পিছিয়ে যাচ্ছে। ২০২১ সাল থেকে পরিমার্জিত কারিকুলাম চালু শুরু হবে। ২০২২ সাল থেকে মাধ্যমিকের নবম শ্রেণিতে মানবিক, বিজ্ঞান, বাণিজ্য বিভাগ উঠিয়ে দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু কারিকুলাম পিছিয়ে যাওয়ায় ২০২৩ সাল থকে নবম শ্রেণিতে বিভাগ বিভাজন উঠিয়ে দেওয়া হবে। আর ২০২৪ সালে দশম শ্রেণিতে বিভাগ বিভাজন উঠিয়ে দেওয়া হবে।
তবে নতুন পাঠ্যক্রমে কনটেন্ট পড়ার চাপ কমিয়ে ধারাবাহিক মূল্যায়নে গুরুত্ব দেওয়া হবে। নম্বর ও সময় কমিয়ে আনা হবে পরীক্ষায়। কারিগরি শিক্ষাকে করা হবে জীবনমুখী।

২০২১ সাল থেকে ২০২৫ সালের মধ্যে প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেণির পাঠ্যবই পরিমার্জন শেষ করা কথা ছিল। কিন্তু করোনা পরিস্থিতির কারণে পরিমার্জন করা হচ্ছে ২০২২ সাল থেকে। উচ্চ মাধ্যমিকের দ্বাদশ শ্রেণির বই পরিমার্জনের মধ্য দিয়ে পরিমার্জন শেষ হবে ২০২৬ সালে।

এনসিটিবির সদস্য অধ্যাপক ড. একেএম রেজাউল হাসান বলেন, ২০২২ সালে প্রথম, দ্বিতীয় ও ষষ্ঠ শ্রেণির পরিমার্জিত বই পাবে শিক্ষার্থীরা। এ বছর প্রাক-প্রাথমিকের ৪ বছরের বেশি বয়সের শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই পৌঁছে দেওয়ার উদ্যোগ হয়েছে। যদি সম্ভব না হয়, তাহলে ২০২৩ সালে নতুন বই পাবে শিক্ষার্থীরা।

এনসিটিবি সূত্রে জানা গেছে, ২০২৩ সালে তৃতীয়, চতুর্থ অষ্টম ও নবম শ্রেণির বই পাবে শিক্ষার্থীরা। এ বছরই ৫ বছরের বেশি বয়সী প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই দেওয়ার উদ্যোগ রয়েছে। যদি সম্ভব না হয় তাহলে ২০২৪ সালে দেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, ২০২২ সাল থেকে সারাদেশের সব প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুই বছরের প্রাক-প্রাথমিক চালু করা হবে। ২০২১ সাল থেকে দুই বছরের পাইলটিং শুরু হচ্ছে ২ হাজার ৬৩৩টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। এরপর সারাদেশে ২০২২ সালে চালুর পরিকল্পনা নিয়েছে সরকার।

পরিকল্পনা অনুযায়ী ২০২৪ সালে সম্ভব হলে একাদশ ও ২০২৫ সালে দ্বাদশ শ্রেণির পরিমার্জিত পাঠ্যবই দেওয়া হবে। যদি সম্ভব না হয় সে ক্ষেত্রে ২০২৫ সালে একাদশ এবং ২০২৬ সালে দ্বাদশ শ্রেণির বই শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দেওয়া হবে।

২০২১ সালে ২ হাজার ৬৩৩টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দুই বছরের প্রাক-প্রাথমিক পাইলটিং শুরুর কথা রয়েছে। বর্তমানে এক বছরের প্রাক-প্রাথমিক চালু রয়েছে। পাইলটিং করা হবে ৪ বছরের বেশি বয়সী শিশুদের ভর্তি করে। এসব শিশুর জন্য নতুন কারিকুলামের বই দেওয়ার কথা ছিল ২০২১ সাল থেকে। তা পিছিয়ে ২০২৩ সালে যেতে পারে। একইভাবে পরের বছর দেওয়া হবে ৫ বছরের বেশি বয়সী শিশুদের পরিমার্জিত পাঠ্যবই।

x