অলৌকিক ঘটনা, ভেনিজুয়েলার নদীতে ভেসে আসছে স্বর্ণালংকার

নদীতে ভেসে আসছে স্বর্ণলংকার! এ ঘটনায় ভেনিজুয়েলার মৎসজীবী প্রধান গ্রাম গুয়াসা এখন ইন্টারনেট দুনিয়ায় আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু। যদি ভাগ্যে জোটে সোনার গয়না ওই আশাতেই গ্রামের মানুষ দাঁড়িয়ে আছে নদীর পাড়ে।

গত সেপ্টেম্বর মাসে ২৫ বছর বয়সী ইয়োলম্যান লারেস ওই গ্রামের নদীতে হঠাৎ এক দিন কুড়িয়ে পান একটি সোনার হার। ওই জায়গায় তখন একটি মেডেলের মতো বস্তুও ছিল। ছিল খোদাই করা মাতা মেরির ছবি। বড় কথা হলো হারটি ছিল সম্পূর্ণ স্বর্ণের তৈরি। আনন্দে কেঁদে ফেললেন তিনি। এ ব্যাপারে স্থানীয় এক সংবাদ মাধ্যমকে বলেছিলেন লারেস। এ দিকে ঘটে গেল হুলুস্থুল কাণ্ড! সংবাদ প্রকাশের পর গ্রামের মানুষ নদীর ধারে গিয়ে সন্ধান করতে থাকে স্বর্ণালংকার।

অনেকেই বলছেন, গত কয়েক মাসে তারা স্বর্ণালংকার পেয়েছেন একাধিকবার। স্বর্ণালংকারগুলো দোকানে বিক্রিও করেছেন অনেক দামে। তবে সংখ্যার হিসাবে এখনো প্রায় দুই হাজার বাসিন্দা নদীর পাড়ে স্বর্ণালংকারের সন্ধানে অংশ নিয়েছেন।

একজন বলেছেন, একটি অলংকার তিনি বিক্রি করেছেন প্রায় দেড় হাজার আমেরিকান ডলারে। বাংলাদেশী টাকায় যার মূল্য প্রায় দেড়লাখ টাকার মতো।

যদিও এখনো কেউ বুঝতে পারেনি এ গয়না আসছে কোথা থেকে। তবে করোনা মহামারিতে অনেক দেশের মতো ভেনিজুয়েলাতেও অর্থ সঙ্কট ঠিক তখন নদীতে এভাবে স্বর্ণালংকার পেয়ে আনন্দে আত্মহারা গ্রামবাসীরা।