মে’য়েদের পাঁচ’টি অ’ঙ্গ বড় হলে স্বা’মীরা সৌভাগ্য’বান হয়ে থাকে..!

লোকজনরা জানে না যে, পুরু’ষরা একবার হলেও তাদের দুঃখ দিতে পারে কিন্তু না’রীরা কখনই সেটা করে না। একথা একদম সত্যি যে বিয়ে দেওয়ার পর মে’য়েরা মে’য়েই থাকে কিন্তু ছেলেরা স্বা’মী হয়ে যায়।

এই জগতে অমূ’ল্য অবদান রয়েছে ম’হিলাদের। কারণ তাদের থেকেই সৃষ্টি হয় নতুন প্রা’ণের।আমা’দের দেশে এখনো কিছু কিছু গ্রাম রয়েছে যেখানে কন্যাস’ন্তান জ’ন্ম নিলে রীতিমত শো’ক পালন করা হয়।

অথচ তাদের সত্যিই কোন ধারণা নেই যে বর্তমান যুগে না’রীরা কতটা এগিয়ে গেছে। পুরু’ষদের সাথেই কাঁধে-কাঁধ মিলিয়ে সমস্ত রকম দায়িত্ব সামলাতে পারে তারা।

সবাই জানে যে না’রীরাই নতুন প্রা’ণের উৎস, তবুও না’রীদের প্রাপ্য সম্মান দেওয়া হয় না। তবে বলা উচিত যে, বর্তমানে অনেক লোকজনেরই না’রীদের স’ম্পর্কে চিন্তা-ভাবনা পাল্টেছে।

এই ধরণের ম’হিলারা যে পরিবারে যান সেই পরিবারে কখনোই টাকা-পয়সার অভাব হয়না।বড় চোখঃযেসব ম’হিলার চোখ বড় হয় তাদের দেখতে তো সুন্দরী লাগেই, এছাড়াও এনারা স্বা’মীকে অ’ত্যন্ত ভালোবাসেন।

যে বাড়িতে এনারা যান সেখানে ধ’ন-সম্পদের আধিক্য ঘটে। এই ধরণের ম’হিলারা কখনই নিজের স্বা’মীকে ঠকান না।লম্বা নাকঃযেসব ম’হিলাদের নাক লম্বা হয় তাদের সব রকম স’মস্যা শান্ত মাথায় সমাধান করার ক্ষ’মতা থাকে।

এনাদের টাকা খরচ করার প্রবণতা থাকে, তবে তারা কখনই বাজে খরচ করেন না।লম্বা গ’লাঃযেসব ম’হিলার লম্বা গ’লা আছে তার অ’ত্যন্ত সৌভাগ্যের অধিকারীনি হন।

লম্বা আঙুলঃযেসব ম’হিলাদের আঙুল লম্বা হয় তারা অ’ত্যন্ত বু’দ্ধীমতি হন, আর তাদের লেখা-পড়া করার দারুণ সখ থাকে। এই ধরণের ম’হিলারা টাকা-পয়সা কম খরচ করেন এবং টাকা-পয়সা পেলে চেষ্টা করেন তা কিভাবে বাড়ানো যায়।