বগুড়ায় আবারো বিএনপির ৫ নেতাসহ, দুই বিদ্রোহী প্রার্থী বহিষ্কার

“বগুড়ায় গাবতলী পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপির দুই বিদ্রোহী এবং তাদের সমর্থক তিনজনসহ ৫ নেতাকে বহিস্কার করা হয়েছে। বহিষ্কৃত নেতারা হলেন- গাবতলী পৌর কৃষকদলের সভাপতি আইয়ুব হোসেন রাজু , পৌর যুবদলের সেক্রেটারী সাজেদুল আলম,

পৌর বিএনপির সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক জাফর ইকবাল রেজা, বর্তমান পৌর বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য আব্দুল করিম এবং ছাত্রদলের সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি সুজন আহমেদ।

এদের মধ্যে গাবতলী পৌর নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে আইয়ুব হোসেন রাজু জগ প্রতীকে এবং নারিকেল গাছ প্রতীকে সাজেদুল আলম প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

মঙ্গলবার (২৬ জানুয়ারি) সন্ধায় বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-দপ্তর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের কারণে তাদের বহিস্কারের কথা জানানো হয়। বগুড়া জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির সদস্য আলী আজগর তালুকদার হেনা এ কথা নিশ্চিত করেছেন।

আরও পড়ুনঃসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের করোনাভাইরাসের টিকার আওতায় আনা হবে। এ জন্য সব শিক্ষকের তালিকা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে।

বিদ্যালয় খোলার আগে বা পরে শিক্ষকদের টিকা দেয়া কার্যক্রম শুরু করা হবে বলে জানিয়েছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন। মঙ্গলবার (২৬ জানুয়ারি) প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ফেব্রুয়ারির যেকোনো দিন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় খুলে দেওয়া হবে। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করে মাসের প্রথম বা দ্বিতীয় সপ্তাহে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা হবে।

সে জন্য সকল বিদ্যালয় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করে ক্লাস নেওয়ার মতো করে উপযোগী করে তুলতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। জাকির হোসেন বলেন, সব প্রাথমিক শিক্ষককে করোনার টিকার আওতায় আনা হবে।

শিক্ষার্থীদের বয়স ১৮ বছরের নিচে হওয়ার তাদেরকে এ আওতায় আনা সম্ভব হচ্ছে না। শিক্ষক ও কর্মকর্তাদের টিকা দেওয়া হবে।

স্কুল খোলার আগে বা পরে এ কর্মসূচি শুরু হবে। তিনি আরও বলেন, প্রাথমিকের সকল শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের তালিকা তৈরি করে আমরা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছি। ধাপে ধাপে সবাইকে টিকার আওতায় আনা হবে।কিন্ডারগার্টেন স্কুল খোলার বিষয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন,

তারা (কিন্ডারগার্টেন) চাইলে যেকোনো সময় স্কুল খুলতে পারে। এ বিষয়ে আমাদের কোনো বাধা-নির্দেশ নেই। তারা আমাদের নিবন্ধন নিয়ে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করে না, তাদের বিষয়ে আমাদের কোনো দায়-দায়িত্ব নেই।

তবে নিবন্ধিতরা তাদের প্রতিষ্ঠান খুলতে চাইলে আমাদের সঙ্গে আলোচনা করে কিন্ডারগার্টেন স্কুল খুলে দিতে পারবে বলেও তিনি জানান।