প্রেমিকার জন্মদিনে অংশ নিয়ে বিপাকে রোনাল্ডো

সমালোচনা শুনতেই যেন পছন্দ পর্তুগিজ তারকা ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর। বেশ কিছু দিন তাকে নিয়ে তীর্যক আলোচনা হচ্ছিল না। কিন্তু গত বুধবার ইতালির করোনাবিধি ভেঙে ফের সমালোচনার পালে হাওয়া দিলেন সিআর সেভেন।

এদিন ছিল প্রেমিকা জর্জিনা রদ্রিগেজের ২৭তম জন্মদিন। তা পালনে ইতালি ছুটে গেছেন রোনাল্ডো।

এ ঘটনায় বিপাকে পড়েছেন রোনাল্ডো। কারণ এতে ইতালির করোনাকালীন ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা ভেঙেছেন তিনি।

করোনা পরিস্থিতিতে তুরিন ছেড়ে আরেক শহরে যাওয়ায় তা শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে গণ্য করেছে ইতালির সরকার। এ জন্য রোনাল্ডোকে ৪০০ ইউরো করে জরিমানা গুনতে হতে পারে।

গত বুধবার ইনস্টাগ্রামে একটি ভিডিও পোস্ট দেন জর্জিনা। যেখানে দেখা যায়, প্রেমিক রোনাল্ডোর সঙ্গে রিসোর্টে জন্মদিন উৎসব পালন করছেন জর্জিনা।

সেই পোস্ট মুহূর্তে ভাইরাল হয়ে পড়ে। পাশাপাশি সমালোচনার ঝড় ওঠে। এভাবে একজন আইকনের করোনাবিধি ভাঙা মোটেই সমীচীন নয় বলে মন্তব্য করেন অনেকে। বিষয়টি রোনাল্ডোর ভক্ত-অনুরাগীদের প্রভাবিত করতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন কেউ কেউ।

ইনস্টাগ্রামে এসব সমালোচনা আর ঝামেলার কথা টের পেয়ে সেই ভিডিও মুছে দেন জর্জিনা। কিন্তু তাতে খুব একটা লাভ হয়নি। এর আগেই ইতালির গণমাধ্যমকর্মীদের নজরে পড়ে যায় সে পোস্ট। সেদিনই ইতালির সংবাদমাধ্যমগুলোতে তা ফলাও করে প্রচার করা হয়।

ইতালিয়ান পত্রিকা ‘কোরিয়েরে দেল্লো স্পোর্ত’ জানিয়েছে, জুভেন্টাস তারকা ও তার প্রেমিকা জর্জিনা মঙ্গলবার রাতে লে মাসিফ নামে এক পাঁচতারকা হোটেলে একসঙ্গে অবস্থান করেন। বুধবার তারা একসঙ্গে তুষারপাতের মধ্যে ঘুরে বেড়িয়েছেন। জন্মদিন পালন করে বৃহস্পতিবার তুরিনে নিজ ক্লাবে ফিরে গেছেন রোনাল্ডো।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছে সংবাদ সংস্থা এএফপিও।

এএফপির খবর অনুযায়ী, জর্জিনার জন্মদিন পালনের জন্য নিজের ক্লাব জুভেন্টাসের হেড কোয়ার্টার্স থেকে ১৫০ কিলোমিটার দূরে কোরমায়েরে একটি পাহাড়ি রিসোর্টে গিয়েছিলেন রোনাল্ডো। করোনাভাইরাসের শীতকালীন প্রকোপের সময় সেখানে যাওয়া পুরোপুরি নিষিদ্ধ। কুরমেয়ার অঞ্চলে তারা যে হোটেলে (লে মাসিফ) ছিলেন, সেটি আগেই আনুষ্ঠানিকভাবে বন্ধ ঘোষণা করেছিল ইতালিয়ান কর্তৃপক্ষ।

ঘটনাটি নিয়ে রোনাল্ডো বা জুভেন্টাস ক্লাব কর্তৃপক্ষের কেউ কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি। তবে পর্তুগিজ তারকার এই প্রমোদভ্রমণের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। সংবাদমাধ্যম ‘লা স্টাম্পা’ জানিয়েছে, পুলিশ আজ লে মাসিফ হোটেলে গিয়ে তা বন্ধ পেয়েছে।

উল্লেখ্য, রোনাল্ডো এই প্রথম করোনাবিধি ভঙ্গ করেননি। এর আগেও একইরকম কাণ্ড করে সমালোচিত হয়েছিলেন ৩৫ বছর বয়সী তারকা। গত অক্টোবরে পুরো জুভেন্টাস দল যখন আইসোলেশনে ছিল, তখন তিনি চলে গিয়েছিলেন পর্তুগালে। সেখানে তিনি করোনা পজিটিভ হন এবং ইতালিতে ফিরে ফের আইসোলেশনে বন্দি হন। তখন ইতালির ক্রীড়ামন্ত্রীও রোনাল্ডোর সমালোচনা করেছিলেন।