প্রাথমিকে বন্ধ হচ্ছে যে সুযোগ

প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের ইচ্ছেমতো বয়স কমানোর সুযোগ রাখছে না সরকার। প্রাক-প্রাথমিক ও প্রথম শ্রেণিতে ভর্তির সময় জন্মনিবন্ধন সনদ জমা দিতে হবে। আর ওই জন্ম নিবন্ধন সনদ অনুযায়ী পাবলিক পরীক্ষার রেজিস্ট্রেশন করা হবে।

সরকারের এই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলোকে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

জানা গেছে, গত ১২ জানুয়ারি ভর্তির ক্ষেত্রে জন্মসনদ সংগ্রহ ও সংরক্ষণের ব্যবস্থা নিতে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালককে নির্দেশনা দেয় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

এতে বলা হয়েছিল, নীতি বহির্ভূতভাবে শিক্ষার্থীদের বয়স কমানোর প্রবণতা দূর করতে গত বছরের ১০ ডিসেম্বর একটি সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

সিদ্ধান্তে জানানো হয়, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তির ক্ষেত্রে জন্মনিবন্ধন সনদ গ্রহণ, সংরক্ষণ ও পাবলিক পরীক্ষায় রেজিস্ট্রেশনের সময় ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। নীতি বহির্ভূতভাবে বয়স কমানোর প্রবণতা রোধে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ, কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগ এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় মাঠপর্যায়ে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেবে।

এ সিদ্ধান্তের অংশ হিসেবে গত ১২ জানুয়ারি অধিদপ্তরকে নির্দেশনা দেয় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। তার আলোকে গত সোমবার শিক্ষার্থীদের জন্মসনদ সংগ্রহ ও সংরক্ষণে মাঠপর্যায়ে নির্দেশনা দেয় প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর।

এ বিষয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব রতন চন্দ্র পণ্ডিত বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরকে আমরা প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিয়েছি। তারা নির্দেশনা বাস্তবায়ন করবে।’