যে কয় বছর কারাদন্ড হতে পারে সু চি’র

সোমবার (১ ফেব্রুয়ারি) ভোরে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী অভ্যুত্থানের মাধ্যমে দেশটির ক্ষমতা দখল করে নেয়।

দেশটির ন্যাশলাল লিগ ফর ডেমোক্র্যাসি (এনএলডি) নেত্রী অং সান সু চি ও প্রেসিডেন্ট সহ দলটির সর্বচ্চো পর্যায়ের নেতাকর্মীদের আটক করে সেনাবাহিনী।

আমদানি ও রফতানি আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে সু চি’র মামলা করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাকে ১৪ দিনের রিমান্ডে। মামলায় অভিযোগ প্রমাণিত হলে তার দুই বছর কারাদণ্ড হতে পারে।

মামলার নথি থেকে জানা গেছে, রাজধানী নেপিদুতে সু চি’র বাড়িতে তল্লাশি চালানোর সময় ওয়াকিটকি পাওয়া যায়। এগুলো অনুমোদনহীন ও অবৈধভাবে আমদানি করা হয়েছে। সু চি’র দেহরক্ষীরা এগুলো আমদানি করেছিল। অভিযোগ প্রমাণিত হলে সু চি’র দুই বছরের কারাদণ্ড হতে পারে বলে তার দলের সদস্যরাই জানিয়েছেন।
এদিকে, দেশটির ক্ষমতাচ্যুত প্রেসিডেন্ট উইন মিন্টের বিরুদ্ধে করোনার বিধিনিষেধ লঙ্ঘন করে নির্বাচনী প্রচারণা চালানোর অভিযোগ এনেছে সেনাবাহিনী।