বার বার হাত-পা অবশ হয়ে যাচ্ছে? সা’বধান, মা’রাত্ম’ক রো’গের হাতছানি হতে পারে!

সখনও দীর্ঘক্ষণ হাতের উপর ভর দিয়ে শোয়া বা পায়ের উপর পা তুলে রাখলে অবশ হয়ে যায়। যদিও এটা স্বাভাবিক ঘটনা। এমনটা বার বার যদি হতে থাকলে এবং শরীরের অন্যান্য অংশেও যদি হয় তবে, সতর্ক হওয়া জরুরি। মাল্টিপল স্ক্লেরোসিসের কারণে এমনটা হতে পারে। এই স’মস্যা’য় স্নায়ুতন্ত্রের মায়োলিন সিথ ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে। তাই দেশি না করে চিকি’ৎসকের কাছে যান।

এমন সময়ে, আপনি হাত-পা সরাতে অক্ষম বোধ করেন। এছাড়াও, দেহের যে কোনও অংশে অভ্যন্তরীণ আঘাতের কারণে এ ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে, এমন পরিস্থিতিতে আপনার ডাক্তারের সঙ্গে পরামর্শ করা বুদ্ধিমানের কাজ। হাতে ও পায়ে অসাড়তা বিভিন্ন কারণে হতে পারে। থাইরয়েড, ডায়াবেটিস, স্ট্রোক এবং অন্যান্য অনেক রোগ থাকলে এ ধরনের অসাড়তার সমস্যাও দেখা দেয়।

কেন হয় এই সমস্যা?

একটানা দীর্ঘক্ষণ শরীরের কোনও অংশের উপর চাপ পড়লে ওই অংশ সাময়িকভাবে অবশ হয়ে যেতে পারে। বিশেষজ্ঞদের মতে, স্নায়ু যদি কোনও কারণে চাপ পড়ে শরীরের সেই অংশে কোনও অনুভূতি কাজ করে না ঝিন ঝিন করে বা অবশ লাগে। চিকিত্সকদের মতে, শারীরিক দুর্বলতা বা কোনও রকম সংক্রমণের প্রভাব থাকলে এমনটা হতে পারে। কখনও কখনও কোনও গুরুতর স্বাস্থ্য সমস্যার কারণেও এমনটা হতে পারে।

কিছুক্ষণের জন্য ওই জায়গাটি ম্যাসেজ করলে কমে যায়। ম্যাসেজ করার পরে যদি না কমে, তবে আপনার শরীরে কিছু রোগ আছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। রক্ত সঞ্চালনের অভাবেও, হাত-পাতেও ঝি ঝি ধরতে পারে। যদি আমাদের শরীরে রক্ত সঞ্চালন সঠিকভাবে না করা হয় তবে তা আমাদের শিরাগুলিতে প্রভাব ফেলে, যার কারণে আমাদের দেহের বিভিন্ন অংশে অক্সিজেন ঠিকমতো পৌঁছায় না তখন আমাদের ঝিমঝিম বা অসাড় অবস্থায় পড়তে হতে পারে।

একটানা টাইপ করার কারণ

একটানা টাইপিংয়ের কারণে হাতে পায়ে ঝি ঝি ধরতে পারে। ল্যাপটপ, মোবাইল এবং কম্পিউটারে দীর্ঘক্ষণ কাজ করলে কব্জির নার্ভকেও প্রভাবিত করে। আজকাল মানুষ একই পজিশনে বসে ঘন্টা খানেক সময় ধরে মোবাইল ঘেঁটে চলেন, দীর্ঘ সময় ধরে একই পজিশে হাত রাখলে হাতের মধ্যেও ঝি ঝি ধরে যায়।

নিউরালজিয়ার কারণে এমনটা হতে পারে

স্নায়ু ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার ফলে হাত, পা ও শরীরের অন্যান্য অংশে তীব্র ব্যথা এবং জ্বালা হতে পারে। স্নায়ুরোগ বিশেষজ্ঞদের মতে, নিউরালজিয়ার কারণে এমনটা হতে পারে। শরীরের যে কোনও অংশেই এই সমস্যা হতে পারে এই রোগ। বিশেষ করে কোনও সংক্রমণের কারণে বা বয়সের কারণে হতে পারে এই রোগ।

গর্ভবতী মহিলাদের এই সমস্যা দেখা যায়

গর্ভবতী মহিলাদের মাঝে মাঝে এ ধরনের সমস্যা দেখা যায়।

ওবেসিটি বা ডায়াবিটিস রুখতে নজর ডায়েটেই! আজই করে নিন প্ল্যান…

অতিরিক্ত অ্যালকোহল গ্রহণ

হাত পায়ে ঝি ঝি লাগতে পারে বেশি পরিমাণে অ্যালকোহল গ্রহণ করলেও। অ্যালকোহল অত্যধিক গ্রহণের কারণে, কোষগুলি কাজ শুরু করে দেয়, যা হাত ও পায়ে অসাড় করে তোলে।

থাইরয়েড

এ ধরণের সমস্যা থাইরয়েডের কারণেও হতে পারে। গলার থাইরয়েড গ্রন্থিতে গণ্ডগোলের কারণে হাত-পাও অসাড় হয়ে যায়, বা হাত-পাতে ঝি ঝি বা অসাড় হতে পারে। এমন পরিস্থিতিতে একজন ডাক্তারকে চিকিত্সা করুন এবং আপনার রক্ত পরীক্ষা করুন।

ভিটামিনের ঘাটতি

ভিটামিনের অভাবেও আমাদের শরীরে হাত ও পায়ে ঝি ঝি লাগতে পারে। ভিটামিন বি 12 এর অভাবে হাতে অসাড়তা দেখা হতে পারে। চিকিৎসকের যথাযথ পরামর্শের নিয়ে আপনি ভিটামিনের ওষুধ খেতে পারেন।

স্ট্রোকের সম্ভাবনা

মস্তিষ্কে যদি রক্ত সরবরাহ পর্যাপ্ত না হয় সে ক্ষেত্রে স্ট্রোক হয়। বিশেষ করে রক্তনালী কোনও কারণে বাধাপ্রাপ্ত হলে এমন হয়। স্ট্রোকের প্রথম লক্ষণ হল বাঁ হাত অবশ হয়ে যাওয়া। যা ক্রমশ হাতের তালু পর্যন্ত ছড়িয়ে পরে।