টাঙ্গাইলের গ্রামে ‘অদ্ভুত’ নারী, মাটি-বালু পড়া নিতে ভিড়!

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার খানুরবাড়ি এলাকায় অদ্ভুত আকৃতির এক নারীর দেখা গেছে। তার কাছ থেকে বালু পড়া নিতে ভীড় জমিয়েছেন স্থানীয়রা।

শুক্রবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) বিকালে ওই নারীর ছবি মোবাইলে ধারণ করতে চাইলে ক্ষিপ্ত হয়ে তিনি সেখান থেকে চলে যান। তবে বিকেলের পর তাকে আর কোথাও দেখা যায়নি।

গোপাল চন্দ্র হালদার নামে স্থানীয় এক বাসিন্দা বলেন, ‘এলাকায় হঠাৎ দেখি অদ্ভুত দেখতে ওই নারী বিভিন্নজনকে বালু পড়া দিচ্ছেন। এছাড়া রাস্তার মাটি খাওয়াচ্ছেন। আমি নিজেও প্রথমে তার দেয়া মাটি হাতে নিয়ে দেখি সুগন্ধ ছড়াচ্ছে। পরে সে আমাকে বালু পড়ে দিলে সেটা খেয়ে দেখি বালু মধুর মত মিষ্টি লাগছে।’

স্থানীয় হালদারপাড়ার দেবেন হালদার বলেন, ‘সবার মত আমিও তার দেয়া বালু পড়া হাতে নিই। শুকে দেখি বালু থেকে সুগন্ধ ছড়াচ্ছে। খেয়ে দেখি বালু মধুর চেয়েও মিষ্টি।’

একই গ্রামের আদুরী হালদার বলেন, ‘ছেলে বিশ্বাস হালদারের কয়েকদিন যাবত জ্বরের কারণে নিয়মিত ওষুধ খাওয়াচ্ছিলাম। পরে ওই পাগলের মত দেখতে নারীটি ঝাড়া ফুক দেয়ার পরপরই জ্বর সেরে গেছে।’

স্থানীয়রা জানান, অদ্ভুত ওই নারীকে এলাকায় আগে কখনো দেখিনি। কালো জামা পড়া, মাথায় জটা চুল ছেড়া কাপড় দিয়ে বাঁধা। মুখে অদ্ভুত ধরনের মাস্ক পড়া ছিল। এলাকায় সবাই যার যার রোগ ও সমস্যার সমাধানের জন্য তার কাছ থেকে বালু ও মাটি পড়া খেয়ে টাকা দিয়েছে।

টাঙ্গাইলের হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. রাজিব পাল চৌধুরী বলেন, ‘চিকিৎসা বিজ্ঞানে এর কোন ভিত্তি নেই। বালু বা রাস্তার মাটি খেলে পরবর্তীতে মানুষের পেটের পীড়াসহ বিভিন্নরোগে আক্রান্ত হতে পারে। এতে কিডনিরও সমস্যা হতে পারে।