পথে পথে ভিক্ষা করা মেয়েটি বদলে যায় রিতার ভাগ্য

ফিলিপাইনের মেয়ে রিতা গাভিওলা। পথে পথে ভিক্ষা করেই দিন পার হতো তার। একদিন এক ফটোগ্রাফার তার ছবি তুলে সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেন।

সেই ছবি ভাইরাল হতেই বদলে যায় রিতার ভাগ্য। সেদিনের ভিক্ষুক রিতা এখন নামী মডেল।

২০১৬ সালে তোফার নামে এক ফটোগ্রাফার ফিলিপাইনের কুইজেন প্রদেশের লুচেনা শহরে গিয়েছিলেন। তিনি রিতাকে ভিক্ষা করতে দেখতে পান।

তার সৌন্দর্য দেখে মুগ্ধ হয়ে একটি ছবিও তোলেন। পরে সেই ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করলে ভাইরাল হয়ে যায়। মাত্র ১৩ বছর বয়সে ভাইরাল হওয়া সেই ছবিটিই তার জীবন পাল্টে দিয়েছে।

সে সময় ফিলিপাইনের অনেক নামি সুন্দরী এমনকি সুন্দরী প্রতিযোগিতার চ্যাম্পিয়নদেরও দৃষ্টি আকর্ষণ করতে সক্ষম হন রিতা গাভিওলা। এ কারণে মাত্র ১৩ বছর বয়সেই টেলিভিশনের রিয়ালিটি শোতে অংশ নেয়ার সুযোগ পান তিনি। অনেকে আর্থিকভাবে সহায়তাও করেছিলেন তাকে।

এখন প্রচুর নেটিজেন রিতার প্রতি উৎসুক, উন্মুখ হয়ে থাকেন। অথচ মাত্র চার বছর আগেই রিতা ফিলিপাইনের লুচেনা শহরের রাস্তায় ভিক্ষা করতেন। পথে পথে হাত পেতে ভিক্ষা করে বেড়ানো সেই মেয়ে আজ ফ্যাশন দুনিয়ায় রঙ ছড়াচ্ছেন। ইনস্টাগ্রামে তার দেড় লাখের ওপর ফলোয়ার রয়েছে। রিতা ইনস্টাগ্রামে যেসব ছবি প্রকাশ করেন তা তরুণ হৃদয়ে আগুন ধরিয়ে দেয় বলে দাবি নেটিজেনদের। বেশ কয়েকটি ফ্যাশন ব্র্যান্ড থেকেও মডেলিংয়ের জন্য ডাক আসে।

প্রসঙ্গত, রিতার বাবা একজন ময়লা সংগ্রহকারী। রাস্তা বা ডাস্টবিন থেকে ময়লা সংগ্রহ করতেন। রিতার মা পাঁচ সন্তানের দেখাশোনা করতেন।