করোনায় বিপর্যস্ত ভারত, মিনিটে আক্রান্ত ২৪৩

মহামারি করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে ভারতের সঙ্কট দিন দিন আরও গভীর হচ্ছে।ভেঙে পড়েছে স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থা।বেশিরভাগ হাসপাতালেই দেখা দিয়েছে অক্সিজেনের তীব্র সংকট।

প্রতিনিয়ত দৈনিক সংক্রমণ ও প্রাণহানির সংখ্যা তীব্র গতিতে বাড়ছে। আর প্রায় প্রতিদিনই আক্রান্তের বিশ্বরেকর্ড ভাঙছে দেশটি।

রোববার (২৫ এপ্রিল) ভারতে ৩ লাখ ৪৯ হাজারের বেশি মানুষের দেহে করোনা শনাক্ত হয়েছে। প্রাণ হারিয়েছেন ২ হাজার ৭৬৭ জন মানুষ। এর আগে বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে দৈনিক আক্রান্ত তিন লাখ ছাড়ায় ভারতে। এরপর থেকে টানা চার দিন ধরে ভারতে দৈনিক সংক্রমণ ছিল তিন লাখের বেশি।

দেশটিতে গড়ে প্রতি মিনিটে ২৪৩ জন আক্রান্ত এবং দুই জন করে মানুষের মৃত্যু হয়েছে করোনায়।

ভারতের দৈনিক টাইমস অব ইন্ডিয়ার রোববারের প্রতিবেদনে এমন পরিসংখ্যান তুলে ধরে জানানো হয়েছে, ভারতে দ্বিতীয় দফায় যে দিন থেকে দৈনিক আক্রান্ত লাখ ছাড়িয়েছে, তারপর বাকি দিনগুলোতে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ৪২ লাখের বেশি মানুষ।

প্রথম দফার সংক্রমণের চূড়া দেখার পর ভারতে দৈনিক সংক্রমণ তলানিতে গিয়ে ঠেকেছিল। গত ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি সময়ে ভারতে সক্রিয় কোভিড-১৯ রোগীর সংখ্যা ছিল মাত্র ১ লাখ ৩০ হাজার। ওই সময় সুস্থতার হারও ছিল সর্বোচ্চ।

তবে দ্বিতীয় দফা প্রকোপ শুরুর পর সেই সংখ্যাটা বেড়েছে আশঙ্কাজনক হারে। মাত্র দুই মাসের মাথায় ভারতের সক্রিয় করোনা রোগী এখন ২৬ লাখের বেশি। এই সময়ে দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ১৩ গুণ বেড়েছে।

সক্রিয় রোগীর সংখ্যা যত বেড়েছে তত হাসপাতালে আইসিউ বেড আর অক্সিজেনের তীব্র সঙ্কট তৈরি হয়েছে।

ভারতে করোনায় সবচেয়ে বিপর্যস্ত মহারাষ্ট্র প্রদেশ। দেশটিতে এখন মোট সক্রিয় করোনা রোগীর ২৬ শতাংশই ওই রাজ্যের। এরপর ভারতে সবচেয়ে বেশি সক্রিয় রোগীর তালিকায় রয়েছে যথাক্রমে উত্তরপ্রদেশ, কর্নাটক এবং কেরালা রাজ্য।

সোনালীনিউজ