বাবার চিতায় ঝাঁপ দিলেন মেয়ে

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া বাবার শেষকৃত্য চলছিলো। মরদেহ পোড়ানো হচ্ছিলো শ্মশানের চিতায়। আর তাতেই ঝাঁপ দিয়ে গুরুতর দগ্ধ হয়েছেন ৩৪ বছর বয়সী শোকার্ত।

হৃদয় বিদারক এই ঘটনা ঘটেছে বুধবার ভারতের রাজস্থানে। সম্প্রচারমাধ্যম এনডিটিভির প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

পুলিশ জানিয়েছে, মঙ্গলবার রাজস্থানের বারমার জেলা হাসপাতালে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যান ৭৩ বছর বয়সী দামোদারদাস শারদা।

বুধবার তার মরদেহ পোড়ানোর সময় তিন মেয়ের মধ্যে সবচেয়ে ছোট চন্দ্রা শারদা হঠাৎ করেই চিতায় ঝাঁপিয়ে পড়েন। তবে কিছুক্ষণের মধ্যেই তাকে বের করে আনতে সক্ষম হন আশেপাশের মানুষ। তবে তার মধ্যেই পুড়ে যায় তার দেহের প্রায় ৭০ শতাংশ।

পরে তাকে কাছের একটি হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখান থেকে তাকে যোধপুরের একটি হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। স্থানীয় পুলিশ কর্মকর্তা প্রেম প্রকাশ বলেন, দামোদারদাস শারদার তিন মেয়ে। তার স্ত্রী বেশ কিছু দিন আগে মারা গেছে। সবচেয়ে ছোট মেয়েটি চিতায় ঝাপ দেয়।

বারমার জেলার বাসিন্দা দামোদারদার শারদা করোনায় আক্রান্ত হয়ে গত রবিবার হাসপাতালে ভর্তি হন। মঙ্গলবার তার মৃত্যু হয়। পুলিশ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন ছোট মেয়েটি সবার সঙ্গে জোরাজুরি করে শ্মশানে যায়।