বিজিবি মোতায়েন করেও আটকানো গেল না মানুষের ঢল

সরকারি বিধিনিষেধ উপেক্ষা করে পবিত্র ঈদকে সামনে রেখে নারীর টানে ঘরমুখী মানুষের ঢল দিন দিন বাড়ছে। মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাটে বিজিবির সদস্যরা টহল দিচ্ছেন।

একইসঙ্গে চেকপোস্ট বসিয়ে দায়িত্ব পালন করছেন তারা। তবে তা সত্ত্বেও দক্ষিণবঙ্গগামী হাজার হাজার মানুষ ঘাটে আসছে। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এই ভিড় আরও বাড়ছে।

আজ রবিবার (৯ মে) সকাল থেকেই মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাটে বিজিবির সদস্যরা টহল দিচ্ছেন।

সরেজমিনে দেখা গেছে, এখনো হাজার হাজার যাত্রী নদী পারাপারের অপেক্ষায় ঘাটে আছে। সবখানেই গাদাগাদি ভিড়।

স্বাস্থ্যবিধির কোনো বালাই নেই। এ ছাড়া ফেরিঘাটের আশপাশে জীবনের ঝুঁকি নিয়েই জেলে নৌকাসহ ট্রলারে যাত্রীরা পদ্মা পার হওয়ার চেষ্টা করছে। এ পর্যন্ত ৮টি ট্রলার আটক করেছে নৌপুলিশ।

বিআইডব্লিউটিসির সহকারী মহাব্যবস্থাপক মো. সফিকুল ইসলাম জানিয়েছেন, দিনের বেলায় ফেরি বন্ধ। শুধু জরুরি পরিসেবার কিছু যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে।

সেই ফেরিতেই লোকজন স্রোতের মতো উঠে যাচ্ছে। করোনা সংক্রমণ ঝুঁকির মধ্যেও লোকজন গ্রামে ছুটছেন, কোনো বাধাই মানছেন না। বহরের ১৬ ফেরির মধ্যে জরুরি পরিষেবায় ২-৩টি চলাচল করছে।

মুন্সীগঞ্জের জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. মনিরুজ্জামান তালুকদার জানিয়েছেন, করোনা সংক্রমণ ঝুঁকি থেকে জনসাধারণকে রক্ষায় ঈদে ঘরমুখো না হওয়ার জন্যই পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।

তারপরও লোকজনের ঢল নামছে, তাই দুই প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। বিপুল পরিমাণ পুলিশও কাজ করছে।