‘মা’রামারি করবেন তো খবর আছে’- বললেন মাশরাফি

ফেসবুকে প্রায় আড়াই মিনিটের একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রি’কেট দলের সাবেক অধিনায়ক ও নড়াইল-২ আসনের এমপি মাশরাফি বিন মর্তু’জার।

ভিডিওতে দেখা যায়, নড়াইলের ‘ইতনা’ ইউনিয়নে একটি গ্রাম্য সালিশ শেষে দুই পক্ষকে মিলিয়ে দিয়ে গ্রামবাসীকে শপথ করান ভবি’ষ্যতে যেন আর কারো কথায় নিজেদের মধ্যে মারামারিতে না জড়ায়।

নড়াইলকে পরিবর্তনের শপথ নিয়ে ২০১৮ সালের জাতীয় নির্বাচনে ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের পক্ষে নৌকা প্রতীক নিয়ে বিপুল ভোটে জয়লাভ করেন বাংলাদেশ দলের সাবেক অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। এরপর থেকেই খুলনা বিভাগের অবহেলিত জনপদ নড়াইলের উন্নয়নে দিন রাত কাজ করে যাচ্ছেন মাশরাফি।

তার কাজের অগ্রগতিতে যেমন সন্তুষ্ট এলাকাবাসী, তেমনই দেশের প্রধানমন্ত্রীও। এলাকার যেকোনো সমস্যায় তাকে পাশে পেয়েছেন সেখানকার সাধারণ মানুষ।

তবে নড়াইলের বিভিন্ন গ্রামে এখনও মারামারি-সংঘাতে লিপ্ত হচ্ছে সাধারণ মানুষ। অনেকের প্ররোচনায় তারা নিজেদের জীবন’হানী করছে।

এমনই এক গ্রাম্য সালিশে পৌছে মা’শরাফি বলেন, “আমি এখানে আসতে তিন কিলোমিটার রাস্তা পার করেছি, এই রাস্তা ইটের করা কিন্তু ভাঙ্গা।

এই জায়গায় আসলে আপনাদের বলার কথা ছিল, ভাই এই রা’স্তাটা একটু ঠিক করে দিয়েন। আসার পথে বৃ’দ্ধ মহিলা আমার মায়ের বয়সী, পায়ে ধরে পড়তেছে। ঘর দেখলাম ৩-৪টা গোড়া থেকে উঠিয়ে নিয়ে গেছে।

কার ইন্ধ’নে করতেছেন? বলতে পারবেন? তারা আপনাদের কি দেয়? এই ধরেন আমার কথায় আপনারা এইগুলো করতেছেন, ধরে নিলাম।

আমি আপনাকে খেতে দেই? পরতে দি? ছেলেমেয়ের পড়াশোনা করাই? হাসপাতালে ভর্তি করাই? তাহলে আমি কিসের নেতা! আমার কথায় আপনি আরেকজনকে মেরে ফেলবেন আপনার ছেলে মেয়ে দেউলিয়া হয়ে যাবে।

আপনি যে মামলাটা খাচ্ছেন, পুলিশের কাজ তো পুলিশকে করতেই হবে। ওমুক নেতা ঢাকায় বসে, নড়াইল বসে বলতেছে, মেরে দিয়ে আয়, আপনি মেরে দিলেন!

ঝাঁপায় পড়তেছেন। মেরে দিয়ে এসে আপনার কি হলো আপনি বুঝলেন না। আপনাকে তো পুলিশ ধরে নিয়েই যাবে। যে মারতে বলল, সে কি আপনার মামলা লড়ে? কোনদিন লড়ছে? জেল যা খাটার তা তো আপনারাই খাটছেন, নাকি?’

এ সময় মাশরাফি আরও বলেন, ‘৩০টা রোজা রেখেও ঈদের নামাজ আপনারা পড়তে পারেননি! তা লাভ কী হলো। পুলিশের কাজ, ধরে নিয়ে চলে যাওয়া। এরপর আপনার পরিবার এসবের ভু’ক্ত’ভোগী হবে।

তাদের চুলা জ্বলবে না। আপনাদের সহজ সরল পেয়ে, সব খেয়ে শেষ করে দেবে। সহজ সরল হওয়া ভা, তাই বলে যে যা বলবে তার কথায় ঝাঁপায় পড়া যাবে না। আপনি চি’ন্তা করবেন না আপনার পরিবারের কথা? আমার একটাই কথা, মারামারি করবেন তো খবর আছে। আমি কি’ন্তু আপনাদের কথা নিয়ে গেলাম। আর মারামারি করবেন না।