‘আমার লাশ পুঁতে ফেলো, মাইকে জানাজার এলান করবে না’

চিরকুট লিখে এক চালকল শ্রমিক আত্মহত্যা করেছেন বলে জানা গেছে। আজ রবিবার সকালে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় একটি চালকল থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। এ সময় তার প্যান্টের পকেট থেকে একটি চিরকুট উদ্ধার করে পুলিশ।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ উপজেলার সোনারামপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত শ্রমিক মো. সানোয়ার হোসেন (১৯) নওগাঁ জেলার মহাদেবপুর উপজেলার সরস্বতীপুর এলাকার আব্দুস সালামের ছেলে। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।

তিনি ওই এলাকার ‘খান এগ্রো ফুড’ নামের একটি চালকলে কাজ করতেন। খান এগ্রো ফুড নামে চালকলটির মালিক আশুগঞ্জ উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জিয়াউল করিম খান সাজু।

চালকলের শ্রমিকরা জানায়, শনিবার রাতে মোবাইল ফোনে বাবার সঙ্গে রাগারাগি করেছে সানোয়ার। পরে সকালে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় তার লাশ পাওয়া যায়।

তার প্যান্টের পকেট খেকে উদ্ধার করা চিরকুটে লেখা ছিল- ‘আসসালামু আলাইকুম ওরহমাতুল্লাহ। পারলাম না আর নিজেকে শান্তনা দিতে ও ধর্য্য ধরতে।

আমি চলে যাচ্ছি না ফেরার দেশে। আমার কারো ওপর কোনো অভিযোগ নেই। আমার জীবন ব্যর্থ। এই ব্যর্থতার গ্লানি সব সময় আমাকে কুড়ে কুড়ে খায়। আমার লাশটা কোনো এক স্থানে পুঁতে দিও দয়া করে। জানাজার নামাজ করতে মাইকে এলান করবে না।’

আশুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাবেদ মাহমুদ জানান, খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।

সানোয়ারের প্যান্টের পকেট থেকে একটি চিরকুট উদ্ধার করা হয়েছে। চিরকুট পড়ে মনে হচ্ছে, বাবার সঙ্গে অভিমান করেই ওই শ্রমিক আত্মহত্যা করেছে।