কাফনের কাপড় নিয়ে হাজির প্রেমিকা দেখেই বিয়ের আসর থেকে দৌড়ে পালাল বর

রাজধানী ঢাকার ধাম’রাই উপজে’লার সুয়াপুর ইউনিয়নের ঈশাননগর এলাকায় বিয়ে করতে যাচ্ছেন প্রে’মিক। বরযাত্রী নিয়ে রওনা দেয়ার ঠিক আগ মুহূর্তে প্রে’মিকা এসে হাজির বরের বাড়িতে।

অবস্থা বেগ’তিক বুঝতে পেরে বিয়ের পোশাকেই দৌড়ে পা’লালেন বর। গতকাল মঙ্গলবার (৮ জুন) সন্ধ্যায় এ ঘটনা ঘটে। এ সময় এক হাতে বি’ষের বো’তল ও আরেক হাতে কা’ফনের কাপড় নিয়ে বিয়ের দা’বিতে অন’শন শুরু করে দেন ভু’ক্তভো’গী ওই তরুণী।

জানা যায়, অ’ভিযু’ক্ত প্রে’মিক সুয়াপুর ইউনিয়নের ঈশাননগর এলাকা মো. আব্দুল খালেকের ছে’লে মো. দিদার হোসেন। তিনি মানিকগঞ্জ পোড়রা খান বাহাদুর কলেজের ডিগ্রি পরীক্ষার্থী।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ভু’ক্তভো’গী ওই তরুণীর সঙ্গে একই এলাকার দিদার হোসেনের প্রে’মের স’ম্পর্ক দীর্ঘদিনের। বিয়ের আশ্বা’সও দিয়েছেন ছা’ত্রীকে। কিন্তু এখন দিদার তাকে বিয়ে না করে উপজে’লার সোমভাগ ইউনিয়নের ভালুম এলাকার এক তরুণীকে বিয়ে করতে যাচ্ছেন।

গো’পন খবরের ভিত্তিতে জানতে পেরে প্রে’মিকা একহাতে বি’ষের বো’তল আর অ’পর হাতে কা’ফনের কাপ’ড় নিয়ে প্রে’মিকের বাড়িতে এসে হাজির হন। এ সময় বিয়ের দা’বিতে অ’নশন শুরু করা ভু’ক্তভো’গী ওই তরুণী স্লোগান দেন ‌‘দাবি আমা’র একটাই, স্বামী চাই, স্বামী চাই’। ‘হয় বিয়ে না হয় বি’ষপা’নে আ’ত্মহ’ত্যা হবে’।

দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত আম’রণ অনশন চলবে বলেও জানান তিনি। এদিকে অ’ভিযু’ক্ত দিদারের বাবা আব্দুল খালেক বলেন, ছে’লের সঙ্গে ওই মে’য়ের প্রে’মের কথা জানলে অন্য মে’য়ের সঙ্গে বিয়ে ঠিক করতাম না।

এই অবস্থায় ভেবে স্থি’র করতে পারছি না কী’ করব। এ বিষয়ে ইউপি সদস্য মো. জয়নাল আলী জানান, পরিস্থিতি খুবই জ’টিল হয়ে গেছে। সমঝোতা করার জন্য আমি চেষ্টা করছি।