আফগানিস্তানের নতুন প্রেসিডেন্ট হচ্ছেন আলি আহমদ জালালি

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের চারপাশ ঘিরে ফেলেছে সশস্ত্র বিদ্রোহীগোষ্ঠী তালেবান। পরিস্থিতি থমথমে। সরকার বলছে, শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে। তালেবানও জানিয়েছে, তারা জোর করে কাবুল দখল করবে না।

জানা গেছে, আফগানিস্তানের নতুন অন্তর্বর্তী প্রেসিডেন্ট আলি আহমদ জালালি। তিনি আগে জার্মানিতে আফগানিস্তানের রাষ্ট্রদূতের দায়িত্ব পালন করেছেন।

আফগানিস্তান থেকে প্রাপ্ত খবরে বলা হয়, কাবুলে প্রেসিডেন্ট প্রাসাদে তালেবান ও আফগান সরকারের মধ্যে আলোচনা চলছে। আর তালেবান যোদ্ধারা পরবর্তী নির্দেশনার জন্য কাবুলের ফটকগুলোতে অবস্থান করছেন।

আফগানিস্তানের হাই কাউন্সিল ফর ন্যাশনাল রিকনস্ট্রাকশনের প্রধান আবদুল্লাহ আবদুল্লাহ আলোচনায় মধ্যস্ততাকারীর ভূমিকা পালন করছেন।

এদিকে তালেবানের সহ-প্রতিষ্ঠাতা আবদুল গনি বারাদার দোহা থেকে আফগানিস্তানে আসার চেষ্টা করছেন। তিনি বিভিন্ন সরকারের দূতদের সাথে আলোচনার জন্য তালেবান প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন।

এর আগে তালেবানের তরফ থেকে এক বিবৃতি দিয়ে কাবুলের বাসিন্দাদের ভীত না হওয়ার আহ্বান জানানো হয়। তারা কাবুলে জোরপূর্বক প্রবেশ করবে না এবং শান্তিপূর্ণ ক্ষমতা নিতে তারা সরকারের সঙ্গে আলোচনা করছে।

দেশটির প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি শনিবার একটি আগের রেকর্ড করা বার্তা প্রচার করেছেন। সেখানে তিনি দেশটিতে নিরাপত্তা বাহিনীর অসীম সাহসিকতার প্রশংসা করেছেন। সেই সঙ্গে তিনি সাধারণ মানুষের নিরাপত্তা ও সহিংসতা থেকে বাঁচানোর জন্য কাজ করার কথা জানান।

দ্য কাবুল টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়, ঘানি তার বক্তব্যে দেশটিতে আর প্রাণহানি যেন না হয় সে ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানান।

তিনি বলেন, ‘আমি জানি আপনারা বর্তমান ও ভবিষ্যৎ পরিস্থিতি নিয়ে চিন্তিত। আমি আপনাদের প্রেসিডেন্ট হিসেবে আপনাদের রক্ষা করা আমার দায়িত্ব। তাই যেকোনো ধরনের অনিশ্চয়তা, সহিংসতা বন্ধে আমি কাজ করছি।’

‘সেই লক্ষ্যে আমি সাংবিধানিকভাবে রাজনৈতিক নেতা, সরকার, আন্তর্জাতিক অংশীদারদের নিয়ে কাজ করছি। আশা করছি শিগগির জনগণকে এর ফল জানাতে পারব।‘