ভারতে অফিস টাইম হবে ১২ ঘন্টা, সাথে বাড়ছে বেতনও

ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার শ্রম আইনে পরিবর্তন আনতে চেষ্টা চালাচ্ছে। যদি এ পরিবর্তন আনা হয় তাহলে ১ অক্টোবর থেকে পুরোপুরি বদলে যাবে দেশটিতে অফিসে কাজ করার যাবতীয় নিয়ম-কানুন।

এর আগে ১ এপ্রিল এই আইন চালু করার কথা থাকলেও তখন তা কার্যকর করা সম্ভব হয়নি। এরপর জল্পনা তৈরি হয়েছিল যে ১ জুলাই থেকে এই নতুন কোড কার্যকর করা হতে পারে কেন্দ্রের পক্ষ থেকে। কিন্তু তাও কার্যকর করা সম্ভব না হলে, জানানো হয় আগামী ১ অক্টোবর থেকে নতুন নিয়ম কার্যকর করা হবে।

নতুন এই আইন ১ অক্টোবর থেকে কার্যকর হলে সংগঠিত ক্ষেত্রের অফিসে চাকরি করা অনেক কর্মীর ‘টেক হোম’ বেতন কমতে পারে। পাশাপাশি কাজ করার সময়সীমা, ওভারটাইমে অতিরিক্ত বেতন, ছুটি, বহু কিছু বদলে যেতে পারে।

মূলত ২৯টি শ্রম আইন নিয়ে ৪টি শ্রম কোড তৈরি করেছে কেন্দ্র। কোড অন ওয়েজেস, ইন্ড্রাস্ট্রিয়াল রিলেশন কোড, অকুপেশানাল সেফটি ইন্ড হেলথ, সোশ্যাল সিকিউরিটি কোড। এই কোডগুলোর মধ্যে কোড অন ওয়েজেস-এর জন্যে কমতে পারে টেক হোম বেতন।

এর আগে ওয়েজ কোড আইন, ২০১৯ অনুযায়ী কোনো কর্মচারীর বেসিক বেতন ‘কস্ট টু কম্পানি’র ৫০ শতাংশের কম হতে পারবে না। এই ফাঁককে কাজে লাগিয়ে বহু সংস্থা এখন পর্যন্ত বেসিক বেতন অনেক কম দেখিয়ে অন্যান্য ভাতা বাবদ টাকা দিয়ে নিজেদের ওপর চাপ কমায়। কারণ সেই ক্ষেত্রে পিএফ (প্রভিডেন্ট ফান্ড), গ্র্যাচুইটিতে কম খরচ করতে হতো সংস্থাকে।

তবে নতুন আইনের কারণে বেসিক পে বাড়বে। আর তা হলে কর্মীদের পিএফ বেশি কাটা হবে। গ্র্যাচুইটিও বেশ কাটবে। তাই টেক হোম বেতন কমতে পারে কর্মীদের। এতে অবশ্য অবসরের পর বেশি টাকা পাবেন কর্মচারীরা।

এদিকে নতুন কোড অনুযায়ী এবার থেকে ১৫ থেকে ৩০ মিনিট পর্যন্ত যদি অতিরিক্ত কাজ করে থাকেন তাহলে সেটিকে আধঘণ্টা ধরে নিয়ে সংস্থাগুলোকে ওভারটাইম বেতন দিতে হবে। বর্তমান নিয়ম অনুযায়ী ৩০ মিনিটের কম সময় পর্যন্ত আগে ওভারটাইম দিতে হতো না। পাশাপাশি টানা পাঁচ ঘণ্টার বেশি কাজ করানো যাবে না বলেও রয়েছে কোডে। মাঝে অন্তত আধঘণ্টার বিরতি দিতেই হবে। এদিকে এক দিনে মোট কাজের সর্বোচ্চ সময় ১২ ঘণ্টা নির্ধারিত হবে নতুন আইনে। তবে সাপ্তাহিক ছুটি বাড়ানো হবে নতুন এ আইনে।