জেলে গিয়ে মোটা হয়েছেন পরীমনি!

২৭ দিন জেলে থেকে মোটা হয়েছেন পরীমনি। মেদ জমেছে তার শরীরে। তার ঘনিষ্ঠজনরাই এমনটা স্বীকার করেছেন। এছাড়া মুক্তির পর পরীমনির সাথে যাদেরই দেখা হয়েছে তারাই এক বাক্যে বলেছেন, কিছুটা মুটিয়ে গেছেন এই নায়িকা।

এদিকে ওজন বাড়ার কথা নিজেও স্বীকার করেছেন পরী। গণমাধ্যমকে তিনি বলেছেন, কারাগারে জিম করতে পারিনি। ডায়েট মেনে খাবারও খাওয়া যায়নি। সে কারণে একটু মোটা হয়ে গেছি। ওজন বেড়েছে প্রায় ৩ কেজি। তবে এসব নিয়ে চিন্তিত না। কাজে ফেরার আগেই আবার নিজেকে ফিট করে ফেলতে পারব।

আলোচিত চিত্রনায়িকা পরীমনি কারাগার থেকে মুক্তি পেয়েছেন গত বুধবার (১ সেপ্টেম্বর)। সকাল সাড়ে ৯টার দিকে কাশিমপুর কেন্দ্রীয় মহিলা কারাগার থেকে মুক্তি পান তিনি। মাদক মামলায় গ্রেপ্তার হয়ে এই কারাগারেই বন্দি ছিলেন নায়িকা।

এর আগে মঙ্গলবার (৩১ আগস্ট) জামিন পান তিনি। ৫০ হাজার টাকা মুচলেকায় পুলিশ রিপোর্ট দেওয়ার আগ পর্যন্ত তাকে জামিন দেওয়া হয়।

শুধু জামিনের জন্য এর আগে তিনবার আবেদন করেছিলেন চিত্রনায়িকা পরীমনি। রাষ্ট্রপক্ষের জোরালো আপত্তির মুখে কোনোবারই সাড়া পাননি। উল্টো তিন দফায় ৭ দিন রিমান্ডে নেওয়া হয় পরীকে।

বারবার জামিন আবেদনের শুনানি পেছানোয় বিড়ম্বনায় পড়েন পরীমনি। আদালতে গণমাধ্যমকে উদ্দেশ্য করে নিজেকে নির্দোষ দাবি করেন তিনি। তৃতীয় দফায় রিমান্ড শুনানি শেষে নিয়ে যাওয়ার সময় টানাহেঁচড়ায় পড়েও যান পরী।

এরপর চতুর্থ দফায় জজ আদালতে জামিন চান পরীমনি। কিন্তু শুনানির তারিখ দেরিতে দেওয়ায় আবারও ঝুলে যায় পুরো প্রক্রিয়া।

অবশেষে উচ্চ আদালতের হস্তক্ষেপে মঙ্গলবার শুনানি হয়। ৫০ হাজার টাকা মুচলেকায় পুলিশ রিপোর্ট দেওয়ার আগ পর্যন্ত জামিন দেন আদালত।

গত ৪ আগস্ট রাজধানীর বনানীর বাসা থেকে পরীমনিকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। তার বাসা থেকে মদ, আইস, এলএসডি উদ্ধারের দাবি করে সংস্থাটি। রিমান্ডের সময়সীমা বাদে কাশিমপুর কারাগারে ১৯ দিন ছিলেন এ চিত্রনায়িকা। আইনি প্রক্রিয়া শেষে বুধবার কারামুক্ত হতে পারেন তিনি।