ফেলে যাওয়া সেই নবজাতকের মায়ের খোঁজ মিলেছে

পুলিশের অনুসন্ধানে দুইদিন পর খোঁজ মিলেছে মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলার পুটিয়াজানি এলাকার রাস্তার পার্শ্বে ফেলে যাওয়া সেই নবজাতক (মেয়ে) শিশুর। জিজ্ঞাসাবাদে নবজাতকের ধাত্রী খুশি বেগম (৪৫) স্বীকার করেছে সেদিন রাতের কথা। গতকাল বুধবার সন্ধ্যার দিকে ঘিওর থানা পুলিশ ওই নারীকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে আসেন এবং পাষন্ড সেই মা নবজাতকের ধাত্রী বিষয়টি স্বীকার করেন।

তবে খুশি বেগম শারিরিক অসুস্থ থাকার কারনে তাকে ঘিওর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, খুশি বেগম স্বামী পরিত্যক্তা তিনি নারী পুটিয়াজানি এলাকায় বাসা ভাড়া থাকতেন। তার বাড়ি পার্শ্ববর্তী উপজেলা দৌলতপুরে। লোকলজ্জার ভয়ে অবৈধ গর্ভপাত হাওয়ায় পাশের বাড়ির বাসনা (৩৫) নামের এক মহিলাকে লালন পালনের জন্য শিশুটি তুলে দেন। কিন্তু শিশুটির পরিচয় কি দিবে এমন শঙ্কায় শিশুটিকে রাস্তায় কুড়িয়ে পেয়েছে একটি নাটক সাজায়।

এ বিষয়ে বালিয়াখোয়া ইউনিয়নের ভাইস চেয়ারম্যান কাজী মহেলা জানান, নবজাতকের মা খুশি বেগম, প্রতিবেশি বসনা এবং তার স্বামী লাভলু এই ঘটনাকে একটি কাল্পনিক রূপ দেয়। আমরাও তাই বিশ্বাস করেছিলাম। পরে সম্পূর্ণ বিষয়টি উন্মোচন হয় আমরা জানতে পারি। এখন এই নবজাতকের পিতা কে সে বিষয়ে নির্দিষ্ট করে নবজাতকের মা’ই ভাল বলতে পারবে। আমরা চাই এর সঠিক তদন্তের মাধ্যমে ঘটনাটি উঠে আসুক। কেউ অপরাধী হয়ে থাকলে তার অবশ্যই শাস্তি হওয়া উচিত।

এ বিষয়ে ঘিওর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ বিপ্লব বলেন, পুলিশ অনুসন্ধান চালিয়ে রাস্তায় ফেলে যাওয়া সেই নবজাতক শিশুর মায়ের সন্ধান পেয়েছে। ওই নারী স্বামী পরিত্যক্তা এবং অবৈধ গর্ভপাত হাওয়ায় ওই শিশুটিকে নিয়ে একটি নাটক সাজায়। আটককৃত ওই নারীকে শারীরিক সমস্যার কারণে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। হাসপাতলে ভর্তি থাকা নবজাতকের সাথেই তিনি রয়েছে। সুস্থ হবার পর পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে তিনি জানান।

সুত্রঃ বিডি২৪লাইভ