স্বামীকে গ্রেপ্তারের দাবিতে স্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন

মাদারীপুরের ডাসার উপজেলায় নির্যাতনের অভিযোগে করা মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানাভুক্ত আসামি স্বামী আলামিন হাওলাদারকে দ্রুত গ্রেপ্তারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন স্ত্রী নাসিমা বেগম।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে কালকিনি উপজেলা রিপোর্টার্স ইউনিটি কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলন করা হয়।

এ সময় দুই অবুঝ সন্তান নিয়ে স্বামীকে গ্রেপ্তার ও সঠিক বিচারের দাবিতে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন তিনি। ভুক্তভোগী ওই নারী ডাসার উপজেলার দক্ষিণ ভাউতলী গ্রামের দরিদ্র আবুল হাসেমের মেয়ে। প্রায় ১০ বছর আগে তাকে পারিবারিকভাবে বিয়ে করেন দক্ষিণ মাইজপাড়ার রকিব হাওলাদারের ছেলে আলামীন। বিয়ের পর তাদের সংসারে এক ছেলে ও এক মেয়ের জন্ম হয়। সন্তান জন্মের পর আলামীন বিভিন্ন সময় যৌতুকের দাবিতে স্ত্রী নাসিমাকে শারীরিকভাবে নির্যাতন করেন। নাসিমার পরিবার গরিব তাই যৌতুক দিতে ব্যর্থ হওয়ায় তার উপর নির্যাতনের মাত্রা বেড়ে যায়।

এক পর্যায় নির্যাতন সইতে না পেরে নাসিমা তার দুই সন্তান নিয়ে বাবার বাড়িতে আশ্রয় নেন। এরপর থেকে আলামীন তার স্ত্রী ও সন্তানদের সঙ্গে সব ধরনে যোগাযোগ বন্ধ করে দেন। এতে নাসিমা অর্থভাবে তার দুই সন্তান নিয়ে অনাহারে-অর্ধহারে দিন কাটাচ্ছেন। পরে নিরুপায় হয়ে তিনি আদালতে যৌতুক ও নারী-শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন। আদালত আলামিনকে গ্রেপ্তারের আদেশ পাঠান ডাসার থানা পুলিশের কাছে। কিন্তু প্রায় এক মাস পার হলেও রহস্যজনক কারণে আলামীনকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। এ নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে ক্ষোভ প্রকাশ করেন নাসিমা বেগম।

এ ব্যাপারে ভুক্তভোগী নাছিমা বেগম বলেন, ‘সমাজে দুর্বল লোকের কোনো দাম নেই। শক্তিশালী না হলে সঠিক বিচার পাওয়া যায় না। আমার স্বামী আলামীনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি হলো অথচ থানা পুলিশ তাকে ধরছে না। আমি তাকে দ্রুত গ্রেপ্তারের দাবি জানাচ্ছি।’

এ বিষয় জানতে গিয়ে অভিযুক্ত আলামীনকে এলাকায় পাওয়া যায়নি।

এ ব্যাপারে ডাসার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাসানুজ্জামান বলেন, ‘আলামীনকে কয়েকবার গ্রেপ্তার করতে অভিযান চালানো হয়েছিল। তার বাড়ি রাস্তার পাশে থাকায় সে পালিয়ে যায়। তাকে ধরার জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে।’

সূত্র: এন টিভি নিউজ