অষ্টম ও নবম শ্রেণির ক্লাস নিয়ে নতুন সিদ্ধান্ত

অষ্টম ও নবম শ্রেণির ক্লাস সপ্তাহে এক দিনের পরিবর্তে দুই দিন করে নেওয়া হবে। অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে জানানো হয়, অষ্টম শ্রেণির ক্লাস হবে প্রতি রোববার ও বৃহস্পতিবার। আর শনিবার ও বুধবার হবে নবম শ্রেণির ক্লাস। এছাড়া আগের মতোই মঙ্গলবার ষষ্ঠ শ্রেণি ও সোমবার সপ্তম শ্রেণির ক্লাস হবে।

দশম শ্রেণি ও এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ক্লাস আগের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সপ্তাহে ছয় দিনই হবে। আগামী সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) থেকে মাধ্যমিক স্তরের সব সরকারি ও বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শ্রেণি কার্যক্রম নতুন সূচি অনুযায়ী পরিচালনার জন্য আদেশে জানানো হয়।

মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে দেড় বছর বন্ধ থাকার পর গত রোববার থেকে স্কুল-কলেজ খুলে দিয়েছে সরকার। শিক্ষার্থীদের উপস্থিতিতে শ্রেণিকক্ষে প্রাণ ফিরে এসেছে। সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে সব শ্রেণির শিক্ষার্থীদের এক সঙ্গে ক্লাসে না ফিরিয়ে একেক দিন একেক শ্রেণির ক্লাস নেওয়া হচ্ছে আলাদা সময়ে।

আরও পড়ুন: স্কুল মাঠ দখল করে ধান চাষ, ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর জানিয়েছে, প্রথম থেকে পঞ্চমের শ্রেণি কার্যক্রম প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের নির্দেশনা অনুসারে পরিচালনা করতে হবে। আর ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণির (নিম্ন মাধ্যমিক) শ্রেণি কার্যক্রম মাধ্যমিকের (ষষ্ঠ থেকে নবম) সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে পরিচালনা করতে হবে।

কোভিডের কারণে গত বছরের ১৭ মার্চ থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়। এরপর থেকে দফায় দফার বন্ধ বাড়িয়ে চলতি মাসের ১২ সেপ্টেম্বর থেকে স্কুল-কলেজ খুলে দেওয়া হয়।

এরপর শিক্ষার্থীদের বরণ করে নিতে কলেজগুলোতে ছিল নানা আয়োজন। উৎসবের আমেজ ছিল সদ্য ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীদের মাঝে।

যদিও কোভিড-১৯ নির্মূল না হওয়া পর্যন্ত সারা দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখতে সরকারের সংশ্লিষ্টদের প্রতি আইনি নোটিশ পাঠানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সচিবসহ ছয় জনকে এ নোটিশ পাঠিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী খন্দকার হাসান শাহরিয়ার।

নোটিশে করোনাকালীন পুরো সময়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়, ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয় এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের অধীনে যৌথ কমিটি করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে অনলাইনে শতভাগ ক্লাস নেওয়ার পদক্ষেপ গ্রহণ করতে অনুরোধ জানানো হয়েছে। একই সাথে নোটিশ পাওয়ার সাতদিনের মধ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্ত বাতিল করে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ ও প্রচার করার অনুরোধ করা হয়েছে। অন্যথায় এ বিষয়ে প্রতিকার চেয়ে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হবে বলেও নোটিশে উল্লেখ করা হয়েছে।

সুত্রঃ সময় নিউজ