গরু চুরি, চোরকে দেখে অবাক মালিক!

নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলার বলাইশিমুল ইউনিয়নের গোপালপুর গ্রামে বাবার একটি ষাঁড় চুরির পর পিকআপভ্যানে নিয়ে পালানোর সময় পু’লিশের কাছে ধরা পড়েছেন ছেলে সোহাগ মিয়া (২৮)। এ সময় আরও ৩ জনকে আটক করেছে পু’লিশ।

রোববার (২৬ সেপ্টেম্বর) বিকেলে তাদের নেত্রকোনা আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। এর আগে শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) রাত দেড়টার দিকে ওই গ্রামের গ্রাম পুলিশ সেলিম মিয়ার বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

আটককৃতরা হলেন, গ্রাম পু’লিশ সেলিম মিয়ার ছেলে সোহাগ মিয়া। মিলন মিয়া একই ইউনিয়নের রাজিবপুর গ্রামের শামছউদ্দিনের ছেলে এবং পিকআপ চালক ইসলাম উদ্দিন ও তার সহকারী আব্দুল্লাহ দুজনই ঢাকার বাসিন্দা।

সেলিম মিয়া জানান, শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) রাত দেড়টার দিকে সেলিম মিয়া গোয়াল ঘরের দরজা খোলা দেখতে পান। পরে ঘরে গিয়ে দেখেন তার ষাঁড় গরুটি নেই। পরে গরুটি খোঁজাখুঁজি শুরু করলে একপর্যায়ে জানতে পারেন কয়েকজন চোর গরুটি পিকআপভ্যানে নিয়ে পালিয়ে যাচ্ছে। এ সময় তিনি ওই পিকআপভ্যানটির পিছু নেন এবং পুলিশকে খবর দেন।

এরপরে রোববার (২৬ সেপ্টেম্বর) ভোরে পার্শ্ববর্তী আটপাড়া থানার পু’লিশ উপজেলার দুর্গাশ্রম চৌরাস্তা মোড় এলাকায় গরু ভর্তি পিকআপসহ ৪ জনকে আটক করে। রোববার (২৬ সেপ্টেম্বর) দুপুরে কেন্দুয়া থানা পু’লিশের কাছে আটকদের হস্তান্তর করা হয়। অন্যদিকে সেলিম মিয়া জানতে পারেননি আটক গরু চোর তার ছেলে ও সহযোগীরা।

এদিকে পু’লিশের কাছে আটকের পর গ্রাম পু’লিশ সেলিম মিয়া জানতে পারেন যে, তার ছেলে সোহাগ মিয়াই সহযোগীদের নিয়ে গরুটি চুরি করেছে।

তিনি আরও জানান, আমার ছেলেই এ চুরি করেছে। লজ্জায় এখন এলাকায় মুখ দেখাতে পারছি না। ছেলে আমার মান-সম্মান সব শেষ করে দিয়েছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা (আইও) মো. তানভীর হাসান মেহেদী জানান, রোববার (২৬ সেপ্টেম্বর) ভোরে চুরি যাওয়া গরু ভর্তি পিকআপ ভ্যানসহ ৪ জনকে আটক করে পার্শ্ববর্তী আটপাড়া থানার পু’লিশ।

তিনি আরও জানান, একই দিন দুপুরে তাদেরকে আমাদের কাছে হস্তান্তর করেছে। কেন্দুয়া থানায় আটককৃতদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের পর ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করে আসামিদের আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।