সব সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত হতে পারে পাকিস্তান ক্রিকেট দলের, এল বড়সড় হুমকি

পাকিস্তান ক্রিকেট দল এখন ইংল্যান্ড সফরে। তাই ওই সংস্থা এবার হুমকির সুরে জানিয়েছে, যে কোনো দিন তারা পাকিস্তানের ড্রেসিংরুমে হানা দিতে পারে।

ইংল্যান্ড পৌঁছেছে পাকিস্তান ক্রিকেট দল। একের পর এক তারকার করোনা টেস্ট হচ্ছে এখনও। রিপোর্ট নেগেটিভ এলে তাঁরা দলের সঙ্গে যোগ দিতে পাড়ি দিচ্ছে ইংল্যান্ড। চলতি মাসেই ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে সিরিজ খেলতে নামবে পাকিস্তান। তবে করোনা পরিস্থিতিতে আপাতত পাক ক্রিকেটারদের নিয়ম মেনে দিনকয়েক থাকতে হবে কোয়ারেন্টাইন। অর্থাত্, ইংল্যান্ডে পৌঁছে তাঁদের বন্দিদশা ঘুঁচছে না আপাতত। আর এই বন্দিদশার মাঝেই এল দুঃসংবাদ। জৈব সুরক্ষা বলয়ে থেকে পাক ক্রিকেটারর করোনার থেকে বেঁচে যাবেন হয়তো।
কিন্তু বিতর্ক ও হুমকি থেকে বাঁচতে পারছেন না একেবারেই।

ব্রডশিট এলএলসি নামের একটি সংস্থা পাকিস্তান ও ন্যাশনাল অ্যাকাউন্টেবিলিটি ব্যুরোর কাছ থেকে ৩৩ মিলিয়ন ডলারেরও বেশি অর্থ পায়। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এত বড় অঙ্কের অর্থ ফেরত দিতে পারেনি পাকিস্তান। পাকিস্তান কাউন্সেল ‘অ্যালেন অ্যান্ড ওভারি’কে একটি চিঠি পাঠিয়েছে ওই সংস্থা। কিন্তু পাকিস্তান নাকি গত কয়েক মাসে কোনো উত্তর দেয়নি। এমনকী টাকা ফেরত দেওয়ার ব্যাপারেও কোনও উচ্চবাচ্য করেনি। পাকিস্তান ও ন্যাব-এর বিরুদ্ধে মামলা করেছিল ওই সংস্থা। সেই মামলায় জয়ী হয়েছে তারা। আদালত নির্দেশ দিয়েছে, পাকিস্তানের জাতীয় ক্রিকেট দলের সমস্ত সম্পত্ত বাজেয়াপ্ত করার। তবে সেই সংস্থা এখনও পর্যন্ত কোনও পদক্ষেপ করেনি।

পাকিস্তান ক্রিকেট দল এখন ইংল্যান্ড সফরে। তাই ওই সংস্থা এবার হুমকির সুরে জানিয়েছে, যে কোনো দিন তারা পাকিস্তানের ড্রেসিংরুমে হানা দিতে পারে। এমনকী লন্ডনে পাকিস্তান দূতাবাস বিল্ডিং এবং হাইকমিশনারের বাড়িও বাজেয়াপ্ত করার হুমকি দিয়ে রেখেছে তারা। নিউইয়র্কের রুসভেল্ট হোটেলও রয়েছে তাদের তালিকায়। আসলে ২০০০ সালে পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের পরিবার-সহ পাকিস্তানের বেশ কিছু সরকারি কর্মকর্তার দুর্নীতির তদন্তভার দেওয়া ব্রডশিট এলএলসি নামের সংস্থাটিকে। কিন্তু কাজ শেষ করার পরও পাকিস্তান বকেয়া পারিশ্রমিক শোধ করেনি।

x