ওসি প্রদীপের ‘উপদেশ’ ভাইরাল

সম্প্রতি সাবেক মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খানকে হত্যা করে আলোচনায় এসেছেন কক্সবাজারের টেকনাফ থানার প্রত্যাহারকৃত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ। দিন যত যাচ্ছে প্রতিদিনই বের হয়ে আসছে তার নানা কুকীর্তির খবর।

ক্রসফায়ার কিংবা ঘুষ দুর্নীতি সব কিছুতেই যেন সেরা ছিলেন প্রদীপ। ক্ষমতার অপব্যবহার করে দফায় দফায় পার পেয়ে গেলেও এবার আর শেষরক্ষা হয়নি তার।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও এখন আলোচনা প্রদীপকে নিয়ে। এবার ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে তার উপদেশ সম্বলিত একটি বিলবোর্ডের ছবি।

ভাইরাল হওয়া ছবিতে লেখা রয়েছে, ‘প্রিয় অভিভাবক, আপনার সন্তানকে নৈতিক শিক্ষা দেয়া আপনার নৈতিক দায়িত্ব। নজর রাখুন সে কার সাথে মেলামেশা করছে।’

এদিকে সিনহার পরিবারের করা মামলায় এখনো রিমান্ডে নেওয়া সম্ভব হয়নি ওসি প্রদীপ, এসআই লিয়াকতসহ ৩ জনকে। র‌্যাব বলছে, পুরোপুরি প্রস্তুত থাকলেও কিছু জটিলতায় রিমান্ড শুরু করতে আরো কিছুদিন সময় লাগতে পারে।

সিনহার হারিয়ে যাওয়া ল্যাপটপ ও ক্যামেরার বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে শিপ্রা, সিফাত এবং আগের তদন্ত কর্মকর্তাকে।

৩১ জুলাই টেকনাফে পুলিশের গুলিতে অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা নিহত হওয়ার পর ৫ আগস্ট পরিবারের পক্ষ থেকে ৯ পুলিশ সদস্যকে অভিযুক্ত করে দায়ের করা হয় মামলা ।

পরদিন এ ঘটনায় ৭ পুলিশ সদস্য আত্মসমর্পন করলে আদালত ৩ জনকে ৭ দিন করে রিমান্ড এবং বাকী ৪ জনকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দেয়।

রিমান্ড আদেশের পর পার হয়ে গেছে বেশ কদিন। ৪ আসামিকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলেও নানা জটিলতায় এখনও ওসি প্রদীপ, লিয়াকতসহ ৩ জনের রিমান্ড শুরু করতে পারেনি তদন্তকারী সংস্থা র‌্যাব। আদালতের নির্দেশে বাড়ানো হয়েছে সময়।

ব্রিফে র‌্যাবের কর্মকর্তা জানান, আসামিদের রিমান্ডে নেওয়ার জন্য প্রস্তুত থাকলেও কিছু জটিলতায় এখনো রিমান্ডে নেওয়া সম্ভব হয়নি ৩ আসামিকে।

তিনি বলেন, ‘এই মামলার অন্যতম সাক্ষী শিপ্রা এবং সিফাত। তারা মানসিক একটা ট্রমার ভেতর দিয়ে যাচ্ছে। আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদের আগে তাদের কথাগুলো শুনতে হবে। এ কারণেই মূলত এখনও রিমান্ডে নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না।’

x