অন্যায় আচরণ অনেক সহ্য করেছি, আর নয়: ডা. জাফরুল্লাহ

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের উদ্ভাবিত অ্যান্টিবডি কিটের অনুমোদন না দেওয়াকে অন্যায় হিসেবে অ’ভিহিত করে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, ‘তাদের অন্যায় আচরণকে অনেকদিন সহ্য করেছি। আর নয়।’ শুক্রবার (১৪ আগস্ট) একটি গণমাধ্যমে দেওয়া সাক্ষাৎকারে জাফরুল্লাহ চৌধুরী এ মন্তব্য করেন। আগামীকাল শনিবার (১৫ আগস্ট) থেকে গণস্বাস্থ্য নগর হাসপতা’লে চালু হচ্ছে ‘গণস্বাস্থ্য প্লাজমা সেন্টার’। এ ছাড়া আরটি-পিসিআর পদ্ধতি ও গবেষণার অংশ হিসেবে নিজেদের উদ্ভাবিত অ্যান্টিবডি কিট দিয়েও করো’না শনাক্তের কাজ শুরু করবে গণস্বাস্থ্য। এসব বিষয়ে সরকারের অনুমতি নিয়েছেন কি না জানতে চাইলে ডা. জাফরুল্লাহ এ মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, ‘আগামীকাল থেকে আমাদের প্লাজমা সেন্টার চালু হবে। সেটা চালুর পর আগামী ১০ দিনের মধ্যেই আম’রা পিসিআর পদ্ধতিতেও পরীক্ষা শুরু করব। আম’রা সরকারকে জানিয়েছি যে, আম’রা অ’ত্যাধুনিক পিসিআর মেশিন স্থাপন করেছি। এক্ষেত্রে আমাদের এখানে যারা পরীক্ষা করাবেন, তাদের মধ্যে যাদের স্বাস্থ্যবিমা আছে, তাদের জন্য আড়াই হাজার টাকা এবং যাদের স্বাস্থ্যবিমা নেই, তাদের ক্ষেত্রে তিন হাজার টাকা করে ফি হবে।’
আরটি-পিসিআর পদ্ধতিতে পরীক্ষার জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে আবেদন বিষয়ে তিনি বলেন, ‘তাদের জানিয়েছি। আবেদন কী’ করব? সরকারকে ভালো কাজে সাহায্য করছি। তাদেরকে জানিয়েছি। লিখিতভাবে জানিয়েছি।’

অনুমোদন না দিলে কোনো জটিলতা আছে কি না জানতে চাইলে জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘তারা আ’দালতে যাক। এসব বন্ধ করে দেক। দেশ এমনিতেই বন্ধ হয়ে যাক।’
প্লাজমা সেন্টারের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমি সবার কাছে আহ্বান জানাচ্ছি, যারা করো’নামুক্ত হয়েছে, তারা যাতে এসে র’ক্ত দিয়ে যায়। অনেক র’ক্ত দরকার। প্রত্যেকে যাতে এসে র’ক্ত দিয়ে যায়। র’ক্তদান করতে কোনো খরচ নেই। তবে, যিনি প্লাজমা নেবেন, তার ক্ষেত্রে যেহেতু অনেক পরীক্ষা-নিরীক্ষার বিষয় আছে, তাই তাদের ক্ষেত্রে সব মিলিয়ে পাঁচ থেকে ছয় হাজার টাকা ফি পড়বে।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের প্লাজমা সেন্টার ২৪ ঘণ্টা খোলা থাকবে। সারাদেশের মানুষ এখান থেকে প্লাজমা নিতে পারবে। প্রাথমিক অবস্থায় আম’রা প্রতিদিন ২৫ জনকে প্লাজমা দিতে পারব। তবে, আগামী মাসে বিদেশ থেকে আমাদের আরও একটি মেশিন আসছে। তখন আশা করছি প্রতিদিন ৬০ জনকে প্লাজমা দেওয়া যাবে’।

অ্যান্টিবডি কিট দিয়ে পরীক্ষার ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘সরকার আমাদের কিটের অনুমোদন দেয়নি। আম’রা গবেষণার অংশ হিসেবে এই কিট দিয়ে পরীক্ষা করব। আগামীকাল থেকেই অ্যান্টিবডি কিট দিয়ে পরীক্ষা চালু হবে। এই কিট দিয়ে পরীক্ষা করতে আম’রা চার শ টাকা করে নেব।’

অনুমোদন না পাওয়ার পরও গবেষণার অংশ হিসেবে অ্যান্টিবডি কিট দিয়ে পরীক্ষা করলে কোনো আইনি জটিলতা বা ঝামেলা হতে পারে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘তাদের অন্যায় আচরণকে অনেকদিন সহ্য করেছি। আর নয়। অনেকদিন ধরে তারা দেশের ক্ষতি করছে। তাদের আচরণ হয়’রানিমূলক। নাগরিক হিসেবে আম’রা এটা আর সহ্য করব না। প্রয়োজন হলে তারা আ’দালতে যাক। ব্যবস্থা নেক। আম’রা সেটার মুখোমুখি হব।’

তিনি আরো বলেন, ‘আপাতত গবেষণার অংশ হিসেবে আম’রা অ্যান্টিবডি কিট দিয়ে পরীক্ষা করব। দৈনিক তিন শ থেকে চার শ, যতজন আসবে, আম’রা পরীক্ষা করব। ভবিষ্যতে অ্যান্টিজেন কিটে দিয়েও পরীক্ষা চালু করতে পারি। অ্যালাইজা পদ্ধতিও আম’রা এই দেশে আবিষ্কার করেছি। কিন্তু, কোনোটারই অনুমোদন দেওয়া হয়নি। আমাদেরকে হয়’রানি করা হচ্ছে। এর ফলে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ক্ষতি হয়েছে ১০ কোটি টাকার বেশি। আর জনগণের ক্ষতি হয়েছে হাজার কোটি টাকা’।

জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘আমি অনেক আগেই বলেছি, ঘুষ দিয়ে তাদের মনোপূর্ণ করে নাই বলে এবং আম’দানিকারকদের স্বার্থে তারা আমাদের আ’ট’কে রেখেছে। তারা বলছে, যু’ক্তরাষ্ট্রের স্ট্যান্ডার্ড। আমা’র দেশের নীতিমালা তো আমা’র দেশের হবে। তারা এখন বলেছে, আমাদেরকে যু’ক্তরাষ্ট্রে পরীক্ষা করাতে হবে। এটা কোনো সমাধান? সরকার খুব ভুল পথে হাঁটছে। আগে ব্যাংক আমাদের পেছনে ঘুরছিল, আমাদের ৫০ কোটি টাকা দরকার বলে। সরকারের উসাদীনতার ফলে এখন আর কোনো ব্যাংক উৎসাহী না। কত দেশ থেকে আমাদের কাছে আবেদন করেছিল, তারা আমাদের কিটের লাইসেন্স নিতে চায়। এখন আমাদের দীর্ঘসূত্রিতার কারণে অন্যান্য দেশ এটা উদ্ভাবন করে ফেলেছে। ফলে বাংলাদেশে হেরে গেছে। প্রথম উদ্ভাবনের সুনামটা আম’রা হারিয়েছি, ব্যবসার সুনামটা হারিয়েছি। সবকিছু মিলিয়ে আম’রা প্রমাণ করেছি যে, মানসিকভাবে আম’রা উন্নত না।’

x