মেসির দশ নম্বর জার্সি চান তিনি

জীবন কারওর জন্য থেমে থাকে না। অতীত আশ্রয় করে কেউ বেঁচে থাকতে পারে না। ফুটবলের ক্ষেত্রেও ব্যাপারটা যথেষ্ট প্রাসঙ্গিক। পেলে-গারিঞ্চারা চলে যাওয়ার পরে ফুটবলের ঝান্ডা এগিয়ে নিয়ে গেছেন ম্যারাডোনা-প্লাতিনিরা, সেখান থেকে রোনালদো-বাতিস্তুতারা, এখন আছেন মেসি-ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোরা। ফুটবল কখনো থেমে থাকেনি কারওর প্রস্থানে।

মেসি বার্সা ছেড়ে চলে গেলেও বার্সেলোনা যে থেমে থাকবে, তা নয়। হ্যাঁ, অপূরণীয় এক ক্ষতি হয়তো হবে, কিন্তু সেই ক্ষতির কথা মাথায় রেখেই এগোতে হবে সামনের দিকে, নতুন আশায় বাঁধতে হবে বুক। পরম আরাধ্য যে দশ নম্বর জার্সিটা স্প্যানিশ লুইস সুয়ারেজ, ডিয়েগো ম্যারাডোনা, স্টিভ আর্চিবল্ড, রিস্টো স্টইচকভ, রোমারিও, গিওর্গি হ্যাগি, রিভালদো, হুয়ান রোমান রিকেলমে, রোনালদিনহোর হাত ধরে এসেছিল মেসির কাছে, মেসি চলে যাওয়ার পর সে জার্সিটাও খুঁজে নেবে নতুন আশ্রয়স্থল। সে আশ্রয়স্থল কে হবেন? চলছে নানান জল্পনা কল্পনা।

এর মধ্যে চমকপ্রদ এক খবর জানিয়েছে স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম ‘২০ মিনুতো’। তারা জানিয়েছে, বার্সার ড্যানিশ স্ট্রাইকার কার্লোস ব্রাথওয়াইট এর মধ্যে ক্লাবের কর্তাব্যক্তিদের জানিয়ে রেখেছেন, মেসির দশ নম্বর জার্সিটা তাঁর চাই। কিছুদিন আগে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের বিভিন্ন ‘ট্রল’-এ মেসির দশ নম্বর জার্সির উত্তরসূরি হিসেবে ব্রাথওয়াইটের নামই শোনা যাচ্ছিল বেশি, মূল একাদশেই যে খেলোয়াড়ের জায়গা নিশ্চিত নয়। হয়তো তিনিও ক্লাব ছাড়তে পারেন।

কিন্তু ‘২০ মিনুতো’র খবর সত্যি হলে মেসির ‘উত্তরসূরি’ হিসেবে চমক একজনকেই বেছে নেবে বার্সেলোনা। বর্তমানে ব্রাথওয়াইট বার্সার ১৯ নম্বর জার্সিটা পরেন। এই জানুয়ারিতে বিকল্প স্ট্রাইকার হিসেবে লেগানেস থেকে দলে আসা এই তারকার সঙ্গে বার্সার চুক্তি আছে ২০২৪ সাল পর্যন্ত। লেগানেসের হয়ে ২৫ ও ৭ নম্বর জার্সি পরা ব্রাথওয়াইট দশ নম্বর জার্সি পরেছিলেন বহু আগে, যখন ইংলিশ ক্লাব মিডলসব্রো’র হয়ে খেলতেন।

তবে বর্তমানে বার্সার যে অবস্থা, ব্রাথওয়াইট যদি কোনোভাবে দশ নম্বর জার্সি পেয়েও যান, আশ্চর্যের কিছু হবে না। মূল স্ট্রাইকার লুইস সুয়ারেজকে নতুন কোচ রোনাল্ড কোম্যান চাচ্ছেন না। ফলে অন্য ক্লাবে পাড়ি জমাবেন উরুগুইয়ান তারকা। মেসিও যদি চলে যান, সে ক্ষেত্রে আক্রমণভাগের সবচেয়ে বড় নাম হবেন ফরাসি তারক আতোয়াঁ গ্রিজমান। ওদিকে ব্রাজিলের ফিলিপ কুতিনহোকেও রাখার ব্যাপারে আগ্রহ নেই বার্সার। সব মিলিয়ে ‘ঘোলা পানিতে মাছ শিকার’ এর এক অনন্য সুযোগ হয়তো এসে উপস্থিত হবে ব্রাথওয়াইটের সামনে!

x