পরিকল্পনামন্ত্রী: চাকরির বয়স ৩৫-৪০ করা যেতে পারে

দেশের মানুষের গড় আয়ু বেড়ে গেছে, এই যু’ক্তিকে সামনে এনে সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বাড়ানোর দাবি জানিয়ে আসছে একটি পক্ষ। গত কয়েক বছর ধরে এ নিয়ে আ’ন্দোলন করে যাচ্ছে তারা। ডয়চে ভেলেকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বললেন, বিষয়টা বিবেচনা করা যেতে পারে। একইভাবে বাড়ানো যেতে পারে অবসরের বয়সও

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, আমাদের দেশের গড় আয়ু বাড়তে বাড়তে ৭২-এ গিয়ে ঠেকেছে। একটা সময় এই আয়ু ছিল ৫৫-৫৬ বছর। এখন চাকরি থেকে অবসরের পর দীর্ঘ সময় মানুষ কোনো কাজ ছাড়াই থাকে। এই সময়টা সম্পূর্ণ সুস্থও থাকে বেশিরভাগ মানুষ, কারণ আগে চেয়ে মানুষ ভালো খেতে পারে। সুতরাং এটাকেও একটা বেকার পিরিয়ড বলা যেতে পারে।

‘এসব কারণে চাকরি থেকে অবসরের বয়সসীমা যেমন বাড়ানো উচিত, তেমনি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা’ও বাড়ানো যেতে পারে। এতে করে দুদিক থেকেই একটা ব্যালান্স হলো। সরকারের অবস্থান বলতে পারবো না, তবে ব্যক্তিগতভাবে আমি চাকরিতে প্রবেশের বয়স বাড়ানোর পক্ষে। সবমিলিয়ে চাকরিতে প্রবেশ এবং অবসরের পুনর্বিন্যাস করার সময় এসেছে।’ -বলেন পরিকল্পনামন্ত্রী।

এম এ মান্নান আরো বলেন, দেশে এমনিতেই অনেক বেকার, উপরন্তু করো’নাভাই’রাসের কারণে অসংখ্য মানুষ কাজ হারিয়েছেন। স্বাভাবিকভাবেই কর্মহীন মানুষের সংখ্যা আরো বেড়েছে। এদেরকে কাজ দেওয়ার জন্য প্রচুর পরিমাণে কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে হবে। সরকারের জায়গা তো সীমিত, তাই লাখ লাখ বেকারকে চাকরি দিতে বেসরকারি খাতকে এগিয়ে আসতে হবে।

x