হ’জ করার টাকা তো আমা’র নাই, তবে আমা’র মৃ’ত্যু’টা যেন ম’সজিদে হয়

স্ত্রী’ ও এক ছে’লে স’ন্তা’নকে নিয়ে এক রু’মের একটি টিনশেড ভা’ড়া বা’সায় বসবাস করে আ”সছি’লেন সাংবাদি’ক নাদিম আহ’মেদ ফিদা। সাংবাদি’কতা করার সু’বাধে সা’মান্য যা স’ম্মানি পেতেন তা দি’য়েই মোটা’মুটিভা’বে চলে যেত সংসার।

পরিবারে একমাত্র তিনিই উপার্জ’নক্ষম ব্যক্তি ছিলেন। বর্তমানে তিনি আর জী’বি’ত নেই। নামাজ পড়’তে গিয়ে বি’স্ফো’রণে গু’রু’তর আ’হ’ত হয়ে ঢাকা শেখ হাসি’না বার্ন ও প্লা’স্টিক সা’র্জারি ই’নস্টিটি’উটে চি’কিৎসাধীন অব’স্থায়’ রো’ববার রাতে মা’রা’ গেছেন।

রাতেই খা’নপুর জো’ড়াটাংকি সংল’গ্ম মা’ঠে সাংবা’দিক নাদি’ম আহমে’দে’র জানাযা অনুষ্ঠিত হয়। জা’না’যা শেষে শহরের ড’নচে’ম্বার এলা’কায় তার বা’সায় গিয়ে দেখা যায়, এক রুমের এ’কটি টিন’শেড রুমে বসে তার স্ত্রী’ লীমা আহমে’দ স্বামী’র স্মৃ’তি মনে করে আ’হাজারি ক’রছেন। আর পাশে আ’ত্মীয় স্বজন’রা বসে সান্তনা দেয়ার চে’ষ্টা করছেন।

আ’হাজারি থা’মিয়ে কিছুটা স্বাভা’বিক হয়ে লীমা আহ’মেদ বলেন, সাংবাদিকতা করে যে সম্মা’নী পেতে’ন তাতেই চ’লতো সংসার। কিন্তু সেটাও সংসার চলা’নোর মতো যথেষ্ট ছিল না। তাতেও কখনো কা’রো’ কাছে ঋণ বা ধার নে’য়নি।

না খেয়ে থা’কলেও অ’বৈ’ধ পথে হাঁ’টে’ননি। সত্য ভাবে বাঁ’চার চেষ্টা করেছে’ন সব সময়। তিনি বলেন, নাদি’ম প্রায়’ই বল’তো হ’জ করা’র টাকা তো আমা’র নাই তবে আমা’র মৃ’ত্যু’টা যেন ম’সজি’দে হয়।

তখন আমি নিজেও বু’ঝতে পা’রতাম না কেন সে এসব বলে। ম’স’জিদের বি’স্ফো’রণের ঘট’না’য় তার অ’কা’লে চলে যাওয়ায় আমা’র মনে হচ্ছে আ’ল্লাহ তা’য়লা তার দোয়া কবুল করে’ছেন। লী’মা বলেন, একমা’ত্র ইন’কামে’র লো’ক ছিলেন তিনি। এখন ইনকামের লোক চলে গেছে।

ছে’লেকে নিয়ে আ’মি কই ‘যামু, এখন কি ক”রমু। এখনও তো ছে’লের প’ড়ালে’খা শেষ হয় নাই। কি কাজ ক’র’বো। কি’ভাবে সংসার চ’লবো। করো’নার শুরু’তে মো’টরসাই’কেল দুর্ঘ’টনা’য় হাত ভে’ঙে যায়। এ’ছাড়াও আরো অ’নেক রো’গ ছিল।

এতো কিছু’র পরও ক’ষ্ট’ করে সংসা’র চলতো। এক’মাত্র স’ন্তান প্র’স’ঙ্গে কথা বলতে গিয়ে লিমা আ’হমেদ আবারো আ’হা’জারি ক’রতে করতে বলেন, এক’মাত্র ছে’লে নাফি আহ’মেদ বার একা’ডেমী স্কুলে’র নবম শ্রে’নির ছাত্র। এ’তো ক’ষ্টে সংসা’র চল’তো কিন্তু কখ’নো ছে’লের প’ড়ালে’খা বন্ধ করেনি।
আশা ছি’ল ছে’লে’কে উচ্চ শিক্ষা’য় শিক্ষি’ত করবে। ভালো কোন চা’করি করবে। কিন্তু ওর আশা আর পূ’রন হলো না। আমা’র ছে’লের পড়া’লেখা’ই বন্ধ হয়ে যাবে।

x