মে’য়ের সামনে শিক্ষক বাবাকে পে’টানো সেই চেয়ারম্যান বরখাস্ত

নিজ বাড়িতে সালিশের নামে এক মাদরাসা শিক্ষক এবং নারী-শি’শুকে পি’টিয়ে আ’হতের ঘটনায় অবশেষে সাময়িক বরখাস্ত হয়েছেন কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজে’লার রাজামেহার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এবং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. জাহাঙ্গীর আলম। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের ইউপি-১ অধিশাখার উপ-সচিব মোহাম্ম’দ ইফতেখার আহমেদ চৌধুরী স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে তাকে বরখাস্ত করা হয়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ৯ এপ্রিল সকালে দেবিদ্বার উপজে’লার বেতরা গ্রামের গৃহবধূ আ’মেনা আক্তারের মৌখিক অ’ভিযোগের প্রেক্ষিতে গ্রাম পু’লিশ পাঠিয়ে গৃহবধূর স্বামী মাদরাসা শিক্ষক আজিজুর রহমানকে চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম তার বাড়িতে ডেকে নেন। পরে মে’য়ের সামনে ওই শিক্ষককে পি’টিয়ে র’ক্তাক্ত করেন চেয়ারম্যান। ঘটনার একদিন পর স্থানীয়রা তাকে চান্দিনা উপজে’লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় কুমিল্লার পু’লিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইস’লামের নির্দেশে এক সপ্তাহ পর ১৬ এপ্রিল দেবিদ্বার থা’নায় মা’মলা করেন আ’হত শিক্ষক।

এদিকে, একই ইউনিয়নের উখাড়ী গ্রামের ওয়ালি উল্লাহর স্ত্রী’ কাজল বেগম ও তার শি’শুপুত্র শরীফকে মিথ্যা অ’ভিযোগের প্রেক্ষিতে ৩ এপ্রিল একই চেয়ারম্যান পি’টিয়ে আ’হত করেন। এ ঘটনায় আ’হত কাজল বেগম বাদী হয়ে ১৯ এপ্রিল চেয়ারম্যান ছাড়াও তার ভাতিজা শামীমের বি’রুদ্ধে থা’নায় মা’মলা করেন।

দুটি মা’মলার ত’দন্ত শেষে থা’না পু’লিশ আ’দালতে অ’ভিযোগপত্র দেয়। ১২ আগস্ট দেবিদ্বার উপজে’লা নির্বাহী অফিসার রাকিব হাসান স্বাক্ষরিত এক পত্রে স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন মোতাবেক চার্জশিটভুক্ত ওই চেয়ারম্যানকে বরখাস্ত করার প্রস্তাবনা সরকারের সংশ্লিষ্ট দফতরে পাঠানো হয়।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের ওই প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয় দুটি মা’মলায় অ’ভিযু’ক্ত চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম কর্তৃক সংঘটিত অ’প’রাধমূলক কার্যক্রম পরিষদসহ জনস্বার্থের পরিপন্থী বিবেচনা করে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হলো।

এ বিষয়ে শিক্ষক আজিজুর রহমান বলেন, চেয়ারম্যান সাময়িক বরখাস্ত হওয়ার মধ্য দিয়ে আমি ন্যায় বিচার পেতে যাচ্ছি। আশা করি তিনি চূড়ান্ত বরখাস্ত হবেন। আমি মাদরাসা শিক্ষক, আমা’র কোনো বক্তব্য না শুনেই ওই দিন সবার সামনে আমাকে নিষ্ঠুরভাবে পি’টিয়ে র’ক্তাক্ত করেছিলেন চেয়ারম্যান।

ঘটনার পর এলাকার কিছু লোক এবং সাংবাদিক ছাড়া কেউ আমা’র পাশে ছিল না। তবে ঘটনার এক সপ্তাহ পর মা’মলা রেকর্ডে সহায়তা এবং মা’মলার চার্জশিট দেয়ার জন্য কুমিল্লার পু’লিশ সুপার ও অ’তিরিক্ত পু’লিশ সুপার এবং থা’নার ওসির প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই।

x