মৃ’ত্যু’র পর আত্মীয়রা আসেনি, হিন্দু যুবকের মু’খা’গ্নি করল মুসলিম নারী

এখনো কিছু মানুষ রয়েছেন যারা ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়িতে বিশ্বাস করেন না। সম্পর্কই যাদের কাছে শেষ কথা। হিন্দু বা মুসলিম তাদের কাছে স্রেফ তকমা হয়েই থেকে যায়।

ভারতের আসামের শিবসাগরে এক মুসলিম নারী সেটাই প্রমাণ করে দেখালেন। হিন্দু যুবকের স’ৎ’কার করলেন তিনি নিজে। যুবকের আত্মীয়-স্বজন কেউ এগিয়ে না আসায় তার মু’খা’গ্নি করলেন সেই নারী নিজেই। আসামের এই ঘটনা ধর্মীয় উত্তেজনার মধ্যেই ভারতে নতুন উদাহরণ সৃষ্টি করেছে।

মুসলিম নারীর সঙ্গে হিন্দু যুবকের ভাই-বোনের থেকেও বেশি বড় সম্পর্ক ছিল। ধর্ম তাদের সম্পর্কের মাঝে কখনো প্রাচীর হয়ে দাঁড়ায়নি। সেই যুবক আচমকাই মারা যান। যুবকের নিকটাত্মীয়রা কেউই সৎকারের জন্য এগিয়ে আসেনি। কিন্তু এগিয়ে এলেন তার মুসলিম বোন।

মুসকান বেগম নামের ওই মহিলা তার হিন্দু ভাইকে শ্ম’শা’নে নিয়ে গেলেন। তার মু’খা’গ্নি করলেন। মুসকান বেগম অবশ্য এই ঘটনাকে তেমন আমল দিচ্ছেন না। প্রিয় ভাইকে হারিয়ে তিনি এখন শো’কে স্ত’ব্ধ। কারো সঙ্গেই তেমন কথা বলছেন না তিনি।

হিন্দু ভাইয়ের মু’খা’গ্নির কথা নিয়ে সংবাদমাধ্যমের সামনেও কিছু বলতে অস্বীকার করেছেন তিনি। শুধু এইটুকুই বলেছেন, তিনি নিজের দায়িত্ব পালন করেছেন। এর থেকে বেশি কিছু করেননি।

তাই সংবাদমাধ্যমের সামনে তার বলার কিছুই নেই। তিনি না বুঝলেও মানুষ বুঝতে পারছে, ধর্ম নিয়ে হানাহানির এই কঠিন সময়ে দাঁড়িয়ে মুসকান বেগম সম্প্রীতির কত বড় নজির গড়লেন! জিনিউজ

x