কি’ভাবে বুঝবেন মেয়েটি আপনাকে পছ’ন্দ করে।

ছেলেদের মুখ দেখে বা হাবভাব দেখেই বুঝে ফেলা যায় সে কাকে পছন্দ করে। কিন্তু মেয়েদের ক্ষেত্রে এতটা সহজেই সেটা বুঝা যায়না। আজকে আপনাদের কিছু বিষয় শেয়ার করব।

যা থেকে আপনি বুঝতে পারবেন যে মেয়েটি আপনাকে পছন্দ করে কিনা।একটি মেয়ে খুব সহজেই বুঝে ফেলে যে কোন ছেলে তাকে পছন্দ করে।

কিন্তু একটি ছেলে সহজে বুঝতে পারেনা কোন মেয়ে তাকে পছন্দ করে। কারণ মেয়েদের মুখে থাকে এক কিন্তু অন্তরে আরেক।

তাই কিছু আচার ব্যবহার দেখে আপনি বুঝে নিতে পারবেন যে আপনার পছন্দের মেয়েটি আপনাকে পছন্দ করে কিনা। আর পছন্দ করলে প্রেম হতে খুব বেশি সময় লাগেনা।

মেয়েদের মনে কোন পরিবর্তন আসলে সেটা বাহির থেকে বুঝা যায়না। তাই তো কেউ কেউ বলেন, “মেয়েদের মন বোঝা, নয়রে নয় সোজা”।

আপনি যেই মেয়েকে পছন্দ করেন সবসময় তার হাসির দিকে খেয়াল করুন। মেয়েদের হাসি অনেক প্রশ্নের উত্তর দেয়। তাই তাদের হাসি খেয়াল করুন।

সেই মেয়েটি যদি সবসময় আপনার সাথে দেখা হলেই মুচকি হাসি দিয়ে কথা বলে। তাহলে বুঝে নিবেন মেয়েটি হয়তো আপনাকেই ভালোবাসে।

মেয়েটি আপনারই হতে চায়। তবে এই একটি বিষয় দিয়েই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বোকামি। আরো কিছু বিষয় ও খেয়াল করুন। সেটা নিচে দেওয়া হলো।

দেখা হলে চোঁখ সরিয়ে নেওয়া
যেই মেয়েটি আপনাকে পছন্দ করে সে যদিও আড়ালে আপনাকে দেখে। কিন্তু আপনি তাকালেই সাথে সাথে লজ্জায় চোঁখ সরিয়ে ফেলে।

এরকম হলে ধরে নেওয়াই যায় যে মেয়েটি আপনার প্রতি পজিটিভ।

বিভিন্ন অনুষ্ঠানে মেয়েটি আপনার কাছাকাছি থাকছে কিনা?
যেই মেয়েটি কোন অনুষ্টানে আপনার আশেপাশেই সবসময় ঘুরাফেরা করে। বিভিন্ন অজুহাতে আপনার কাছাকাছি থাকার চেষ্টা করে। ধরে নেওয়া যায় সে আপনাকে পছন্দ করে।

আবার যদি আপনি তার চোঁখের আড়াল হলে মেয়েটি আপনাকে খুঁজতে থাকে। তাহলে ৯৯% নিশ্চিত মেয়েটি আপনার প্রতি দুর্বল।

কারণ ছাড়াই কল বা এসএমএস করা
যদি কোন মেয়ে আপনাকে নানা অজুহাতে কল বা এসএমএস করে। আবার কোন কারণ ছাড়াও কল করে আপনার খোঁজখবর নেয়। তাহলে বুঝে নিবেন সে আপনাকে পছন্দ করে।প্রায়ই প্রশংসা করা

যদি কোন মেয়ে আপনার সব কাজে প্রশংসা করে। আপনি যাই করেন তাতে সাপোর্ট করে। তবে সেই প্রশংসা আপনার সামনে নাও হতে পারে।আপনি কোন ভালো কাজ করলে মেয়েটি অন্য মেয়ে বা লোকদের সামনে আপনার নামে প্রশংসা করে। তাহলে নিশ্চয়ই মেয়েটি আপনাকে পছন্দ করে।

অন্য মেয়েদের সাথে কথা বললে হিংসা করা
মেয়েদের হিংসা জিনিসটা খুব প্রবল। তারা নিজের কোন কিছুকে অন্যের সাথে মেনে নিতে পারেনা। মেয়েরা কোন ছেলেকে পছন্দ করলে সেই ছেলেকে একান্তই নিজের করে পেতে চায়।

অন্য কোন মেয়ের সাথে ছেলেটি কথা বললেই মেয়েটি ভিতরে ভিতরে জ্বলতে থাকে। হিংসায় জ্বলে পুড়ে যায়। অনেক ক্ষেত্রে তা প্রকাশও করে ফেলে।

এরকম হলে বুঝে নিবেন মেয়েটি আপনাকে লাইক করে। সে আপনার সাথেই তার ভবিষ্যৎ জীবন কাটাতে চায়।শুধু আপনাকেই দেখা

মেয়েরা সাধারণত খুব সেন্সিটিভ হয়। তারা সবকিছু খেয়াল করে। যেমনঃ একটা ছেলে কি গায়ে দিচ্ছে, কোন রঙ্গের জুতা পরেছে, চুলের কি কাটিং দিয়েছে।

এত সবকিছু খেয়াল করা একটা মেয়ে যদি আপনাকে দেখে ক্রাশ খায়। তাহলে সে শুধু আপনাকেই দেখতে থাকে। তার হিতাহিত জ্ঞানও অনেক সময় হারিয়ে ফেলে।একটা স্থানে ১০ জন লোক থাকলেও তার দৃষ্টি সবসময়ই আপনার দিকে থাকে।

এরকম হলে নিশ্চিত ভাবেই বলা যায় মেয়েটি আপনাকে পছন্দ করে।আপনার সাথে সুখ দুঃক্ষ শেয়ার করা
মেয়েরা সাধারণত খুব ইমোশনাল হয়। সে যদি তার সুখ দুঃক্ষগুলো আপনার সাথে শেয়ার করে। তার মানে সে আপনাকে অনেক বিশ্বাস করে। আর হয়তো আপনাকেই পছন্দ করে।

আপনার খেয়াল রাখা ও আপনার প্রতি যত্নবান হওয়া
যে মেয়েটি সবসময় আপনার প্রতি খেয়াল রাখে। অথবা আপনার যত্ন করে। নিঃসন্দেহে সে আপনাকে পছন্দ করে।

যেমন, সে আপনাকে বলে, “তুমি শুকিয়ে গেছ”। “খাওয়া দাওয়া ঠিক মত করনা?”

আর কোন জায়গায় যদি তার আপ্পায়নের সুযোগ থাকে তাহলে সে আপনার প্রতি বেশি খেয়াল রাখে।

উপরের লক্ষণগুলো একটা মেয়ের মধ্যে দেখলে মোটামুটি বুঝে নেওয়া যায় মেয়েটি আপনাকে পছন্দ করে। তবে ১০০% নিশ্চিত করে বলা মুশকিল।

সে মেয়েটি কি আমাকে সত্যি ভালোবাসে না, নাকি ভালো না বাসার অভিনয় করে? মেয়েটি আপনাকে ভালোবাসে না। বন্ধু হিসাবে ভালোবাসে এর মানে হচ্ছে সে আপনার সাথে হয়তো কিছুটা সময় কাটাতে চায় কিন্তু জীবন সঙ্গী হিসাবে পেতে চায় না। হতে পারে আপনার সাথে সময় কাটাতে আপনার সাথে কথা বলতে তার ভালো লাগে। কিন্তু সে কখনোই আপনাকে তার জীবন সঙ্গী হিসাবে পেতে চায় না।
সত্যি বলতে একটা ছেলে আর একটা মেয়ের মধ্যে ফ্রেন্ডশিপ হতেই পারে কিন্তু বেস্ট ফ্রেন্ড কখনোই হতে পারে না। বেশীরভাগ ক্ষেত্রে দেখা যায় ৯০% ছেলে তার ঐ বেস্ট মেয়ে ফ্রেন্ডকে ভালোবেসে ফেলে আবার ১০% মেয়েও তার ঐ ছেলে বেস্ট ফ্রেন্ডকে ভালোবেসে ফেলতে পারে। তবে ২০% ছেলে মেয়েই তাদের বেস্ট ফ্রেন্ডকে এই ভালোবাসার কথা জানিয়ে থাকে।

সত্যি কথা বলতে ছাত্র জীবনে এরকম অনেক মেয়েকে দেখেছি যারা ছেলেদেরকে বেস্ট ফ্রেন্ডের তালিকায় রেখে বলদ বানিয়ে দিনের পর দিন অনেক সুবিধা আদায় করে নিয়েছে। ছেলে মেয়ে ফ্রেন্ড হতে পারে কিন্তু বেস্ট ফ্রেন্ড নয়। কারণ অধিকাংশ ছেলেরা তার বেস্ট ফ্রেন্ডের প্রেমে পড়ে যায় কিন্তু সবাই কথাটি বলতে পারে না। যদি বেস্ট ফ্রেন্ড বানাতেই চান এবং সুখ দুঃখের সব কথা শেয়ার করতেই চান তাহলে সমলিঙ্গের কাউকে বেস্ট ফ্রেন্ড বানাবেন। তাহলেই দেখবেন জীবনটা আরো অনেক সহজ হয়ে যাবে। আর প্রেম করবেন বিপরীত লিঙ্গের মানুষের সাথে। কথা গুলো ছেলে মেয়ে উভয়কে উদ্দেশ্য করেই বললাম।

আর আপনার উদ্দেশ্যে সর্বশেষ একথাই বলবো যে, আপনি ঐ মেয়ের প্রতি দুর্বল। তাই শেষ বারের মতন তাকে জিজ্ঞেস করে দেখতে পারেন সে আপনাকে ভালোবাসবে কিনা। যদি আগ্রহ না দেখায় তাহলে বেস্ট ফ্রেন্ডশিপ না রাখায় ভালো। এতে করে আপনি হয়তো দিনের পর দিন তাকে আরো বেশি ভালোবেসে ফেলবেন। তাই তাকে এড়িয়ে চলার চেষ্টা করবেন। এতে করে সে যদি সত্যি আপনাকে ভালোবাসে তাহলে সে আগ্রহ দেখাতে পারে আর না বাসলে কিছুই বলবে না।

x