মিন্নি মনে করে তিন্নিকে জড়িয়ে ধরেছিল সাবেক দুলাভাই, এরপর চিৎকারের শব্দ

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) সাবেক ছাত্রী উলফাত আরা তিন্নির মৃত্যুর ঘটনায় দায়ের করা মামলার প্রধান আসামি জামিরুল ইসলাম জোয়ারদার ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

 

শনিবার (১০ অক্টোবর) ঝিনাইদহের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হয় তাঁকে। সংশ্লিষ্ট আদালতের বিচারক মো. রফিকুল ইসলাম তাঁর জবানবন্দি রেকর্ড করেন। এ খবর নিশ্চিত করেছেন ঝিনাইদহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আনোয়ার সাইদ।

 

তিনি জানান, প্রধান আসামি জামিরুল ইসলাম জোয়ারদারকে গত বুধবার ভোররাতে মাগুরা জেলা শহরের ভায়না এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। ওই দিন তাঁকে আদালতে হাজির হয় এবং মামলার তদন্ত কর্মকর্তা শৈলকুপা থানার পরিদর্শক মহসীন আলী সাত দিনের পুলিশ রিমান্ডের আবেদন জানান।

 

আদালত তিন দিনের রিমান্ডের আদেশ দেন। আজ ছিল রিমান্ডের শেষ দিন। দুপুরের দিকে জামিরুলকে আদালতে হাজির করা হয়।

 

এরপর সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত তাঁর দেওয়া আট পাতার জবানবন্দি রেকর্ড করেন বিচারক। জবানবন্দিতে তিন্নির মৃত্যুর বিস্তারিত বিবরণ তুলে ধরেছেন জামিরুল। জবানবন্দি রেকর্ড করা শেষে কঠোর নিরাপত্তায় রাতেই জামিরুলকে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।

 

আট পাতার জবানবন্দিতে তিন্নির মৃত্যুর বিষয়ে জামিরুল কী ধরনের তথ্য দিয়েছেন তা তদন্তের স্বার্থে প্রকাশ করতে রাজি হননি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার।

 

গত ১ অক্টোবর মধ্য রাতে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্রী উলফাত আরা তিন্নিকে নিজ বাড়ির একটি কক্ষ থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় পরিবারের সদস্যরা উদ্ধার করেন। এরপর তাঁকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তিন্নিকে মৃত ঘোষণা করেন।

 

এ ঘটনার আগে সেদিন রাতে তিন্নির মেজ বোন স্কুলশিক্ষক ইফ্ফাত আরা মিন্নির সাবেক স্বামী জামিরুল তাঁদের বাড়িতে গিয়ে অকথ্য ভাষার গালিগালাজ ও ভাঙচুর করেন।

 

এ ঘটনার পরে তিন্নি আত্মহত্যা করেন। এ ব্যাপারে তিন্নির মা হালিমা বেগম বাদী হয়ে জামিরুল ইসলাম জোয়ারদারকে প্রধান আসামি করে আটজনের নাম উল্লেখ করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে শৈলকুপা থানায় একটি মামলা করেন। প্রধান আসামিসহ পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

 

এদিকে তিন্নির মায়ের বর্ণনায় ফুটে উঠেছে সেই রাতের নৃশংসতা।

 

নিহত তিন্নির পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, বড় বোনের আগেই বিয়ে হয়ে গেছে। তিন বোনের মধ্যে তিন্নি ছিলেন ছোট। মেঝ বোনের বিয়ে হয়েছিল তাদের এক কাজিন জামিরুলের সঙ্গে। তবে বিভিন্ন কারণে সে বিয়ে টেকেনি। বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে শৈলকুপার শেখপাড়া গ্রামে নিজের ঘর থেকেই তিন্নির মরদেহ উদ্ধার হয়।

 

মা হালিমা বেগম বলেন, ‘ওইদিন তিন্নি এক বান্ধবীর বিয়ের অনুষ্ঠানে কুষ্টিয়া গিয়েছিল। অনুষ্ঠান শেষে বাড়ি ফেরে রাত ৮টার দিকে। এর কিছু সময় পর মেজো মেয়ে মিন্নির তালাকপ্রাপ্ত স্বামী জামিরুল গোপনে তিন্নির রুমে ঢোকে এবং খাটের নিচে লুকিয়ে থাকে।

 

তিন্নি বাইরে থেকে এসে পোশাক বদল করে বাসার নিচ তলায় তার সঙ্গে (মা হালিমার সঙ্গে) দেখা করে, একটু বসে। এরপর ঘুমাতে তার রুমে যায়।’

 

তিন্নির মা ঘটনার বর্ণনা দিয়ে আরো বলেন, ‘এরপর তিন্নি বুঝতে পারে তার খাটের নিচে কেউ লুকিয়ে আছে। লোকটি খাটের নিচ থেকে বের হয়ে এক পর্যায়ে তিন্নিকে জাপটে ধরে। শুরু হয় ধস্তাধস্তি। এ সময় চিৎকার দেয় তিন্নি। লোকটি ছিল জামিরুল।’

x