শুধু চার-ছক্কায় মারে ১০ হাজার রানের রেকর্ড গড়লেন গেইল

কুড়ি ওভারের ক্রিকেটে এখন পর্যন্ত দশ হাজার রানের দেখা পেয়েছেন মাত্র তিনজন ব্যাটসম্যান। সবার আগে ক্যারিবীয় দানব ক্রিস গেইল,

পরে তারই জাতীয় দলের সতীর্থ কাইরন পোলার্ড এবং সবশেষ দশ হাজারি ক্লাবে প্রবেশ করেছেন পাকিস্তানের অভিজ্ঞ অলরাউন্ডার শোয়েব মালিক।

এ তালিকার চতুর্থ সদস্য হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে রয়েছেন ডেভিড ওয়ার্নার, অ্যারন ফিঞ্চ, বিরাট কোহলিরা। তবে তারা দশ হাজারে পৌঁছানোর আগেই যেন এ ক্লাবে দেখা মিলেছে নতুন সদস্যের। আসলে নতুন নয়, তিনি পুরোনোই; দশ হাজার রান করা তিন ব্যাটসম্যানেরই একজন।

টি-টোয়েন্টিতে প্রথম দশ হাজার রান করা ক্রিস গেইল এবার শুধু বাউন্ডারি অর্থাৎ চার-ছক্কার মারে ১০ হাজার রানের কীর্তি গড়েছেন। বলা বাহুল্য, এ কৃতিত্বেও সর্বপ্রথম এবং এখন পর্যন্ত একমাত্র খেলোয়াড় এ ক্যারিবীয় দানব। ক্যারিয়ারে করা মোট ১৩ হাজার ৩৪৯ রানের মধ্যে শুধু চার-ছক্কা মেরেই তিনি নিয়েছেন ১০ হাজার ৬ রান।

বৃহস্পতিবার রাতে এবারের আইপিএলে নিজের প্রথম ম্যাচ খেলতে নেমেই এ রেকর্ড গড়েছেন গেইল। রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরুর বিপক্ষে ৪৫ বলে করেছেন ৫৩ রান; যেখানে বাউন্ডারি থেকেই আসে ৩৪ (১ চার ও ৫ ছয়)। এই ইনিংসের পরই টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারে শুধু চার-ছক্কায় গেইলের রান হাজার ছাড়িয়েছে।

২০০৫ সালে চিলাও মারিয়ানস ক্রিকেট ক্লাবের হয়ে পিসিএ মাস্টার্সের বিপক্ষে ক্যারিয়ারের প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচটি খেলেন গেইল। সেই থেকে বৃহস্পতিবারের ম্যাচ পর্যন্ত মোট ৪০৫ ম্যাচে ৩৯৭ বার ব্যাট হাতে নেমেছেন তিনি। যেখানে ক্যারিবীয় ব্যাটিং দানবের মোট সংগ্রহ ১৩৩৪৯ রান।

এতে চারের সংখ্যা ১০২৭ ও ছক্কা হাঁকিয়েছেন ৯৮৩টি। অর্থাৎ চার মেরে ৪১০৮ এবং ছক্কার মারে ৫৮৯৮ রান করেছেন এই বাঁহাতি। যা যোগ করলে দাঁড়ায় ১০০০৬ রান।

চার-ছক্কা মেরে সর্বোচ্চ রান তোলার ক্ষেত্রেও গেইলের পরে স্বদেশি পোলার্ডের অবস্থান। তিনি ৬৬৫টি চার ও ৬৮৫ ছক্কায় করেছেন ৬৭৭০ রান।

এবারের আসরটিতে দলের অষ্টম ম্যাচে গিয়ে প্রথমবারের মতো নামার সুযোগ পেয়েছেন গেইল। প্রথম ম্যাচেই প্রমাণ করেছেন নিজের সামর্থ্য। মাত্র ৩৬ বলে ফিফটি হাঁকিয়ে শেষপর্যন্ত করেন ৫৩ রান। আইপিএলের যে কোনো আসরের প্রথম ম্যাচে এ নিয়ে সপ্তমবারের মতো পঞ্চাশোর্ধ্ব রানের ইনিংস খেললেন গেইল।

x